বেলের এই গোল  ২০১৮ ফাইনালের গল্পটা বদলে দিয়েছিল।
বেলের এই গোল ২০১৮ ফাইনালের গল্পটা বদলে দিয়েছিল।ফাইল ছবি: রয়টার্স

চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের ড্র হয়ে যাওয়ার পরই সবার মাথায় চলে এসেছে ২০১৮ চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালের স্মৃতি। আধুনিক যুগে প্রথম দল হিসেবে সেদিন চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের হ্যাটট্রিক করেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। কিয়েভের ফাইনালে সে রাতে লিভারপুলকে হারিয়েছিল ৩-১ গোলে। দ্বিতীয়ার্ধে লিভারপুল গোলকিপার লরিস কারিয়াসের অদ্ভুত দুই ভুল আর প্রথমার্ধে সের্হিও রামোসের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে মো সালাহর চোট পাওয়ার কারণে আলোচিত হয়ে ওঠা সে ফাইনালের পর এই প্রথম মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল।

পরের বছরই চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছে লিভারপুল। কিন্তু কিয়েভের ওই ফাইনালের হার আর রামোসের ট্যাকলে চোট পেয়ে সালাহর ২০ মিনিট পেরোনোর আগেই মাঠ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সে দাগ এখনো লিভারপুল সমর্থকেরা ভোলেননি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাই প্রতিশোধ শব্দটা ঘুরছে। ওদিকে রিয়াল সমর্থকের কাছে সে ফাইনাল মানে অন্য ধরনের স্মৃতি। এ কারণেই কোয়ার্টার ফাইনালের এ ম্যাচ নিয়ে আশাবাদী শোনাচ্ছে রিয়ালের সাবেক তারকাদের। ক্লাব কিংবদন্তি রবার্তো কার্লোসের ভাষায়, এটা এমন এক ম্যাচ যেখানে দুই দলই দুই দলকে সমীহ করতে বাধ্য। তবে রিয়ালের চেয়ে লিভারপুলেরই দুশ্চিন্তাটা বেশি বলে মনে হচ্ছে সাবেক ব্রাজিলিয়ান লেফটব্যাকের।

default-image
বিজ্ঞাপন

চ্যাম্পিয়নস লিগে লিভারপুলকে পাচ্ছেন জেনেই স্মৃতিকাতর হয়েছেন রদ্রিগো। ২০১৮ সালের ফাইনালের সময় রিয়াল মাদ্রিদের খেলোয়াড় নন, তাঁর পরিচয় ছিল শুধুই রিয়ালের একজন ভক্ত। সেই সময়ের অনুভূতিটা ড্রয়ের পরই জানিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার। লিভারপুলকে কঠিন প্রতিপক্ষ মেনে তাঁর স্মৃতি রোমন্থন, ‘প্রতিযোগিতায় যত এগোবেন তত কঠিন হবে। এ পর্যায়ে সব দলই ভালো দল এবং লিভারপুল সবচেয়ে কঠিন প্রতিপক্ষগুলোর একটি। দারুণ দুটি ম্যাচ হবে, পার্থক্যটা খুবই কম থাকবে। রিয়াল মাদ্রিদ আর লিভারপুলের ম্যাচ সব সময়ই বড় ম্যাচ। বিশ্ব ফুটবলের সবচেয়ে বড় নামগুলোর দুটি। ২০১৮ ফাইনালের কথা আমার ভালোই মনে আছে, আমি রিয়াল মাদ্রিদকে সমর্থন দিচ্ছিলাম!’

রদ্রিগোর পূর্বসূরিও মানছেন এ ম্যাচটা বিশেষ কিছু। তবে রবার্তো কার্লোসের চোখে, এ ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদই এগিয়ে থাকবে। ক্লাবের মুখপাত্রের ভূমিকায় থাকা সাবেক লেফটব্যাকের ভাষায়, ‘আমরা খুবই ভালো এক দলের বিপক্ষে খেলব। তবে প্রথম লেগ ঘরের মাঠে পাচ্ছি। ভালো ফর্মে আছি এবং প্রথম লেগেই ম্যাচের মীমাংসা করে রাখতে চাইব। বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়েরা সবাই রিয়াল মাদ্রিদে আছে। যদি একজন ভালো না খেলে আরও আটজন শীর্ষ মানের খেলোয়াড় সুযোগের অপেক্ষায় আছে। হ্যাঁ, আমাদের লিভারপুলকে সমীহ করতে হবে কিন্তু ওরা আমাদের নিয়ে আরও বেশি ভাববে।’

default-image

আগামী ৬ এপ্রিল রিয়ালের মাঠে প্রথম দেখা হবে দুই দলের। আর অ্যানফিল্ডে দ্বিতীয় লেগ হবে ১৪ এপ্রিল। অবশ্য করোনার প্রকোপের কারণে ম্যাচের ভেন্যু বদলে নিরপেক্ষ কোনো ভেন্যুতে খেলা হতে পারে। তা যা-ই হোক, এই ম্যাচ নিয়ে বেশ উত্তেজনায় ভুগছেন লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপও, ‘রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে ম্যাচ বেশ আকর্ষণীয় হবে। খুব কঠিন ম্যাচ কিন্তু অন্য সব দলের দিকে যখন তাকান, তখন বলতেই হবে, “হায় ঈশ্বর!” কারণ, সবাই খুব শক্তিশালী দল। আমি এই ম্যাচ দুটির অপেক্ষায় আছি।’

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন