বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

দ্বিতীয় ম্যাচে চমকের মাত্রাটা আরও বেশি। এবার যে শেরিফের কাছে হেরেছে প্রতিযোগিতার সফলতম দল রিয়াল মাদ্রিদ! গ্রুপ পর্বের দ্বিতীয় ম্যাচে ১৩ বারের চ্যাম্পিয়ন রিয়ালকে তাদের মাঠেই ২-১ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসের অন্যতম বড় অঘটনের জন্ম দেয় শেরিফ।

জয়সূচক গোলটা এসেছে লুক্সেমবার্গের মিডফিল্ডার সেবাস্তিয়েন থিলের পা থেকে। প্রথম ক্লাব হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগের অভিষেক মৌসুমে অন্তত টানা দুই ম্যাচ জেতার নজির গড়ল শেরিফ।

ডান প্রান্ত থেকে উড়ে আসা ‘হাফ ভলি’ বলে বাঁ পায়ের দুর্দান্ত শট পোস্টের এক কোনা দিয়ে ঢুকেছে জালে। লুক্সেমবার্গের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগে গোল করলেন থিল। গোটা ব্যাপারই স্বপ্নের মতো। থিল নিজেও কি ভেবেছিলেন, এমন সৌভাগ্য হবে তাঁর? না ভাবাটাই স্বাভাবিক।

রিয়ালের জালে থিলের করা চোখধাঁধানো গোলে শেরিফ হয়তো শিরোপা জেতেনি, কিন্তু গোলটা বুড়ো বয়সে নাতি-নাতনিদের কাছে গল্প করার মতো। ম্যাচ শেষ হয়ে গিয়েছে, এখনো যেন ভাসছেন স্বর্গরাজ্যে। নিজের গোল এর মধ্যেই ১০০ বার দেখা হয়ে গিয়েছে তাঁর!

বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে খবরটা নিজেই দিয়েছেন ২৭ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার, ‘আমার অনেক বন্ধু গোলটার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করেছে। ফলে, আমি যখনই ফোন ব্যবহার করি, গোলটা দেখি। এই কয় দিনে ১০০ বারের মতো দেখা হয়েছে গোলটা। লুক্সেমবার্গ একটা ছোট দেশ। আশা করি এ কয় দিনে সবাই আমাকে চিনে ফেলেছে।’


রিয়াল মাদ্রিদকে যে হারাতে পারবেন, সে বিশ্বাস ছিল থিলদের, ‘আমরা রিয়াল মাদ্রিদকে নিয়ে বেশ গবেষণা করেছি। আমরা জানতাম, আমরা ম্যাচটা জিততে পারব। কোচ আমাদের বলেছিলেন, আমরা যেন আমাদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলি। ভয় যেন না পাই। বড় দলের বিপক্ষে বড় মাঠে খেলার যে অনুভূতি, সেটা যেন আমরা পুরোপুরি উপভোগ করি, সেটাই বলেছিলেন কোচ। চ্যাম্পিয়নস লিগের সবচেয়ে ছোট দল আমরা। আমাদের হারানোর কিছু নেই।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন