বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

এমবাপ্পেকে পেতে রিয়াল মাদ্রিদ ২২ কোটি ইউরোর একটি প্রস্তাবও দিয়েছিল পিএসজিকে। কিন্তু প্যারিসের ক্লাবটি তাদের তারকা এ স্ট্রাইকারকে ছাড়তে রাজি নয়। এমবাপ্পে বিক্রির জন্য নয়, এমনটাই বলে দিয়েছে পিএসজি কর্তৃপক্ষ। এর পরও রিয়ালের ফরাসি স্ট্রাইকারকে পাওয়ার চেষ্টা থামছে না দেখে একটু যেন বিরক্ত পিএসজির ক্রীড়া পরিচালক লিওনার্দো। সব মিলিয়ে বিষয়টি নিয়ে রিয়ালের শাস্তি পাওয়া উচিত বলে মনে করেন ব্রাজিলের সাবেক ফুটবলার লিওনার্দো।

শুধু এটুকু বলেই ক্ষান্ত হননি লিওনার্দো, রিয়ালকে নিয়ে বড় একটা অভিযোগই তুলেছেন তিনি। লিওনার্দোর বিশ্বাস, রিয়াল নীতির বাইরে গিয়ে এমবাপ্পের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। আর এটা তারা করছে ‘মুক্ত খেলোয়াড়’ হিসেবে তাঁকে বিনা ট্রান্সফার ফিতে পাওয়ার জন্য। এমবাপ্পের সঙ্গে পিএসজির বর্তমান চুক্তির মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের জুনে। এর মধ্যে নতুন চুক্তি না করলে মুক্ত খেলোয়াড় হয়ে যাবেন এমবাপ্পে। তখন যেকোনো ক্লাবই তাঁকে ট্রান্সফার ফি ছাড়াই দলে টানতে পারবে।

default-image

রিয়াল এখন সেই চেষ্টাটাই করছে উল্লেখ করে লিওনার্দো বলেছেন, ‘মাদ্রিদ বলছে তারা এমনটা (এমবাপ্পের সঙ্গে যোগাযোগ) করছে না। কিন্তু আমার মনে হয় রিয়াল মাদ্রিদ এমবাপ্পেকে ফ্রি এজেন্ট হিসেবে দলে নেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে।’ ইতালির ক্রীড়া দৈনিক গাজেত্তা দেল্লো স্পোর্তের সঙ্গে কথোপকথনে লিওনার্দো আরও বলছেন, ‘দুই বছর ধরে তারা এমবাপ্পেকে নিয়ে জনসমক্ষে কথা বলে যাচ্ছে। এর জন্য শাস্তি হওয়া উচিত।’

এমবাপ্পের মতো একজন তারকা খেলোয়াড়কে নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদের এমন মনোভাব দেখানোটা সমীচীন নয় বলেও মনে করেন লিওনার্দো, ‘এটাকে আমি এমবাপ্পের জন্য অবমাননাকর বলে মনে করি। সে শুধুই আরেকজন ফুটবলার নয়, সে বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার।’ রিয়াল মাদ্রিদ কী করছে, সেটা বোঝাতে গিয়ে লিওনার্দো বলেছেন, ‘রিয়াল মাদ্রিদের কোচ, বোর্ড আর খেলোয়াড়েরা কিলিয়ানকে নিয়ে কথা বলছে...আমার মনে হয় এটা তাদের পরিকল্পনারই একটা অংশ। এটা সম্মানজনক কিছু নয়।’

default-image

তবে রিয়ালের বিরুদ্ধে লিওনার্দোর এমন অভিযোগ এটাই প্রথমবার নয়। এমবাপ্পের প্রতি রিয়ালের এই মনোভাব নিয়ে কদিন আগেই তিনি ফরাসি পত্রিকা লে’কিপকে বলেছিলেন, ‘এটা দুই বছর ধরে চলছে। কিন্তু আমি সবাইকে মনে করিয়ে দিতে চাই যে দলবদলের সময় শেষ।’ এরপর তিনি যোগ করেছিলেন, ‘রিয়াল মাদ্রিদ দিনের পর দিন এমনটা করে যেতে পারে না। এটা বন্ধ হওয়া উচিত। এমবাপ্পে পিএসজির খেলোয়াড় এবং ক্লাবের বিশ্বাস এ সম্পর্ক থাকবে।’

এমবাপ্পের রিয়ালে নাম লেখানোর সম্ভাবনা নিয়ে গত মাসেই দলটির জার্মান মিডফিল্ডার টনি ক্রুস বলেছিলেন, ‘আমি আগেই বলেছি তার মতো একজন খেলোয়াড় আমাদের এখানে এলে আমার ভালোই লাগবে।’ আর করিম বেনজেমার কথা ছিল আরও খোলামেলা, ‘সে আজ, নয়তো কাল রিয়াল মাদ্রিদে খেলবে। আমাদের দুজনের সম্পর্ক বেশ ভালো। আমি তো চাইব আজই সে মাদ্রিদের হয়ে সঙ্গে খেলুক।’

default-image

রিয়ালের সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজও বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন। সম্ভবত তাঁর কথাই লিওনার্দোকে বেশি উতলা করে তুলেছে। স্পেনের সংবাদমাধ্যম এল দেবাতেকে পেরেজ সম্প্রতি বলেছেন, ‘আমরা আশা করছি, আগামী ১ জানুয়ারি (দলবদলের শুরুর দিন) সবকিছুর সমাধান হয়ে যাবে।’ চারদিকে এমন কথাবার্তা হচ্ছে, অন্যদিকে এমবাপ্পে এখনো নতুন চুক্তিতে সই করেননি। সব মিলিয়ে পিএসজির কর্তৃপক্ষের মাথা ঠিক থাকার কথা নয়। তবে সম্প্রতি এমবাপ্পের মায়ের কথা হয়তো দলটির সমর্থকদের কিছুটা হলেও আশ্বস্ত করবে, ‘আমরা পিএসজির সঙ্গে (নতুন চুক্তি নিয়ে) আলোচনা করছি। সবকিছু ঠিকঠাকই এগোচ্ছে।’

দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কী হয়! এ জন্য অবশ্য জানুয়ারির দলবদল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন