বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

আগের ম্যাচেই রাইটব্যাক দানি কারভাহাল চোট পেয়েছেন। তাঁর জায়গা এত দিন লুকাস ভাসকেজ বা নাচো নিতেন। কিন্তু আনচেলত্তি সেটা না করে মিডফিল্ডার ফেদে ভালভার্দেকে রাইটব্যাক হিসেবে নামিয়ে দেন। গত মৌসুমে উপায় না দেখে একই কাজ করেছিলেন জিদান। লিভারপুলের বিপক্ষে সে পরীক্ষায় পার পেয়েছিল রিয়াল।

কিন্তু আজ আনচেলত্তির আরেকটি সিদ্ধান্ত এই সিদ্ধান্তকে ভুল প্রমাণ করেছে। একদিকে ভালভার্দে রাইটব্যাক হিসেবে খেলছেন, ওদিকে মিডফিল্ডে খেলেছেন লুকা মদরিচ, কাসেমিরো ও মার্কো আসেনসিও। আগের ম্যাচেই মিডফিল্ডে নেমে হ্যাটট্রিক করেছিলেন আসেনসিও।

default-image

কিন্তু সেদিন তাঁর পাশে ছিলেন প্রাণবন্ত ও উদ্যমী ভালভার্দে ও কামাভিঙ্গা। আজ তুলনামূলক অনেক বয়সী দুই মিডফিল্ডার পাশে থাকায় আসেনসিও যখন বারবার উঠে যাচ্ছিলেন, মাঝমাঠে শূন্যতা সৃষ্টি হচ্ছিল। আর সে সুযোগে প্রাধান্য বিস্তার করছিল ভিয়ারিয়াল।

সেটা আক্রমণেও প্রভাব ফেলেছে। রিয়াল আক্রমণ বেশি করেছে, শটও বেশি নিয়েছে, কিন্তু গোলমুখে ছিল না একটি শটও। ওদিকে থিবো কোর্তোয়ার দুবার বড় পরীক্ষা নিয়েছে ভিয়ারিয়াল।

default-image

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে তাই রদ্রিগোকে তুলে কামাভিঙ্গাকে নামান আনচেলত্তি। মাঝমাঠের নিয়ন্ত্রণ আর আক্রমণে ধার—দুটিই ফিরে পায় রিয়াল। কিন্তু জোড়াতালি দিয়ে সৃষ্ট রক্ষণের ফাঁক ঢাকা যায়নি। ৫৪ থেকে ৫৬ মিনিটের মধ্যে এগিয়ে যাওয়ার দুটি সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করে অতিথি দল।

৭২ মিনিটে উপায় না দেখে এডেন হ্যাজার্ডকে নামান আনচেলত্তি। এরপর বল ভিয়ারিয়াল ডি-বক্সের চারপাশেই শুধু ঘুরপাক খেয়েছে। কিন্তু গোল আর পায়নি কোনো দল।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন