বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদের ওপর বেশ কিছুদিন ধরেই ক্ষিপ্ত তেবাস। লা লিগা নতুন স্পনসর হিসেবে সিভিসিকে বেছে নিয়েছে। এ জন্য লা লিগা ও দ্বিতীয় স্তর সেগুন্দা দিভিসিওনের ক্লাবগুলোকে সব মিলিয়ে ২৭০ কোটি ইউরো দিতে চেয়েছিল সিভিসি, বিনিময়ে তারা লা লিগার সম্প্রচার সত্ত্বের ১০ শতাংশের মালিকানা পাবে ৫০ বছরের জন্য। রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনার মতো ক্লাবের কাছে লা লিগা-সিভিসির এই চুক্তি লিগের জন্য ক্ষতিকর মনে হয়েছে। নিজেদের আয়ের ১০ শতাংশ ৫০ বছরের জন্য একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে ‘বন্ধক’ দিতে রাজি হয়নি তারা। রিয়াল মাদ্রিদ সরাসরি মামলা করার হুমকি দিয়েছে। বার্সেলোনাও তাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল।

default-image

পরে রিয়াল, বার্সা ও অ্যাথলেটিক বিলবাও এই চুক্তি থেকে সরে গেছে। দ্বিতীয় বিভাগের ক্লাব রিয়াল ওভিয়েদোও এই প্রস্তাবে রাজি হয়নি। ফলে ৩৮ ক্লাবকে নিয়েই সিভিসির সঙ্গে চুক্তি করেছে লা লিগা। কিন্তু এর ফলে সম্ভাব্য ২৭০ কোটি ইউরো আয়টাও ২১০ কোটি ইউরোতে নেমে এসেছে।

সিভিসির চুক্তিতে রাজি হলে আর্থিকভাবে ধুঁকতে থাকা বার্সেলোনা সাময়িকভাবে একটু স্বস্তি পেত। আর্থিক কারণে মেসিকে ছাড়তে বাধ্য হওয়া দলটিকে হয়তো সে পথে হাঁটতে হতো না। এমনকি লা লিগা থেকে প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছিল, সিভিসির চুক্তি স্বাক্ষর করলে নিয়মে ‘ব্যতিক্রমের’ সুযোগ নিয়ে মেসির সঙ্গে চুক্তি নবায়নের অনুমতি দেওয়া হবে বার্সেলোনাকে। কিন্তু সাময়িক লাভের কথা ভেবে ক্লাবের ৫০ বছরের ভবিষ্যৎ বন্ধক রাখতে রাজি হয়নি বার্সেলোনা।

default-image

একে তো লা লিগার প্রস্তাবে রাজি হয়নি বার্সেলোনা, এর আগে আবার ইউরোপিয়ান সুপার লিগের সময়টায় হাত মিলিয়েছিল রিয়ালের সঙ্গে। নতুন সভাপতি হোয়ান লাপোর্তাও সুপার লিগের পক্ষে নিয়মিত কথা বলছেন। তেবাস তাই ভালোই চটেছেন লাপোর্তার ওপর।

তেবাস রিয়ালের প্রতি বার্সেলোনা সমর্থকদের নেতিবাচক মনোভাবটার সদ্ব্যবহার করতে চেয়েছেন স্পোর্তকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে। তিনি বলেছেন, ‘ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ বার্সেলোনাকে জিম্মি করে রেখেছে। বার্সেলোনা এক মাস ধরে সিভিসির চুক্তির পক্ষে সায় দিচ্ছিল। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদ না বলার পরই সব বদলে গেল। ফ্লোরেন্তিনো পেরেজের সামনে এই ক্লাব (বার্সেলোনা) হীনম্মন্যতায় ভোগে।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন