রোনালদোদের উড়িয়ে ঘুরে দাঁড়াল জার্মানি

রোনালদোর গোলে ম্যাচের ১৫ মিনিটে এগিয়ে যায় পর্তুগাল।ছবি: রয়টার্স

আরেকটি ম্যাচ, আবারও গোল পেলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। যে গোলে তিনি তিনি কাটিয়েছেন জার্মানির বিপক্ষে গোল-খরা। কিন্তু রোনালদোর খরা কাটলেও আজ ২০২০ ইউরোতে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে জার্মানির কাছে উড়ে গেছে পতুর্গাল। রোনালদোদের ৪-২ গোলে উড়িয়ে দিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছে প্রথম ম্যাচে ফ্রান্সের কাছে ১-০ গোলে হেরে যাওয়া জার্মানি।

ম্যাটস হুমেলসের আত্মঘাতী গোলে ফ্রান্সের কাছে হারের পরই জার্মানির কোচ ইওয়াখিম ল্যুভ শিষ্যদের উন্নতির তাগিদ দিয়েছিলেন। কোচের সেই কথাতেই হয়তো পর্তুগালের বিপক্ষে জেগে উঠেছেন হাভার্টজ-গোসেনসরা। ম্যাচের শুরু থেকেই পর্তুগালের রক্ষণে আক্রমণের পসরা সাজিয়ে বসে জার্মানরা। প্রথম ১০ মিনিটে বেশ কয়েকটি ভালো আক্রমণ করেও অবশ্য গোলের দেখা পায়নি তারা।

৫ মিনিটে অবশ্য পর্তুগালের জালে বল পাঠিয়েছিলেন রবিন গোয়েসেনস। কিন্তু পর্তুগালের খেলোয়াড়দের আপত্তির কারণে ভিএআরের সাহায্য নেন রেফারি। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় বল গোসেনসের কাছে আসার অনেক আগেই হাতে লেগেছিল টমাস মুলারের। রেফারি সেটিকে হ্যান্ডবল দিয়েছেন।

রুবেন দিয়াসের আত্মঘাতী গোলে সমতায় ফেরে জার্মানি।
ছবি: রয়টার্স

জার্মানি যখন পর্তুগালের রক্ষণে একের পর এক আক্রমণ করে যাচ্ছিল, স্রোতের বিপরীতেই গোল পেয়ে যান রোনালদোরা। জার্মানির একটি কর্নার বিপদমুক্ত করেন ব্রুনো ফার্নান্দেজ। যেটি ছিল বলে তাঁর প্রথম স্পর্শ। সেই বল পেয়ে যান বের্নাডো সিলভা। নিজেদের অর্ধ থেকে বল নিয়ে দৌড়ে জার্মানির রক্ষণে ঢুকে পড়েন তিনি। বল দেন বাঁ প্রান্তে থাকা দিয়োগো জোতাকে।

জার্মানির গোলকিপার ম্যানুয়েল নয়্যারকে একা পেয়েও শট নেননি জোতা। তিনি বল দেন ৮০ গজ দৌড়ে এসে বক্সে ঢোকা রোনালদোকে। বাঁ পায়ের টোকায় তিনি বল পাঠান জালে। জার্মানির বিপক্ষে এটি পঞ্চম ম্যাচে তাঁর প্রথম গোল। আন্তর্জাতিক ফুটবলে ১০৭তম। আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বোচ্চ গোল করা আলী দাইয়িকে (১০৯ গোল) ছাড়িয়ে যেতে আর ৩টি গোলই লাগবে তাঁর।

গুয়েরেইরোর আত্মঘাতী গোলে ব্যবধান জার্মানির পক্ষে ২-১ হয়ে যায়।
ছবি: রয়টার্স

রোনালদোর ওই গোলের পরও কিছুটা এলোমেলো হয়ে যায় জার্মানি। তবে গুছিয়ে উঠতে বেশি সময় নেয়নি ল্যুভের শিষ্যরা। চার মিনেটের ছোট্ট একটা ঝড়ে পর্তুগালকে পেছনে ফেলে তারা। ৩৫ থেকে ৩৯; এই চার মিনিটে দুটি আত্মঘাতী গোল খেয়ে ২-১-এ পিছিয়ে পড়ে পর্তুগাল। প্রথম আত্মঘাতী গোলটি রুবেন দিয়াসের, দ্বিতীয়টি গুয়েরেইরোর। বিশ্বকাপ ও ইউরো মিলিয়ে পর্তুগালই প্রথম দল, যারা এক ম্যাচে দুটি আত্মঘাতী গোল খেল।

পর্তুগালের ম্যাচে ফেলার সম্ভাবনা আরও ক্ষীণ হয়ে যায় দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকেই। ৫১ থেকে ৬০; এই ১০মিনিটে আরও দুটি গোল দিয়ে বসে জার্মানি। ৫১ মিনিটে গোসেনসের পাস থেকে গোল করেন কাই হাভার্টজ। আর ৬০ মিনিটে স্কোরশিটে নাম লেখান বাঁ উইংয়ে দুর্দান্ত খেলা গোসেনস। ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের এক ম্যাচে ৪ গোল খাওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম।

জার্মানির তৃতীয় গোলটি করেছেন কাই হাভার্টজ।
ছবি: রয়টার্স

৭ মিনিট পর পর্তুগালকে আশার বিপরীতে আশা দেখান রোনালদো ও জোতা। দূর থেকে আসা একটি বল জার্মানির বক্সের ভেতরে রাখেন রোনালদো। সেই বল ২ গজ দূর থেকে জালে জড়িয়ে ব্যবধান ২-১ করেন জোতা। ব্যবধান কমানোর পর গোল পেতে মরিয়া হয়ে ওঠে পর্তুগাল। ৭৮ মিনিটে গোল প্রায় পেয়েও যাচ্ছিল তারা। কিন্তু রেনাটো সানচেজের দূরপাল্লার শট ফিরে আসে পোস্টে লেগে।

পর্তুগালের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠোকেন জার্মানির গোসেনস।
ছবি: রয়টার্স

আরও গোল পেতে পারত জার্মানিও। কিন্তু কখনো ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতা, কখনো আবার পর্তুগালের গোলকিপার রুই প্যাট্রিসিওর বিশ্বস্ত হাতে আটকে যায় তারা। পর্তুগাল-জার্মানির ম্যাচ দিয়ে এবারের ইউরোর মৃত্যুকূপ ‌'এফ' গ্রুপের দুটি করে ম্যাচ খেলে ফেলেছে সব দল। ২ ম্যাচ শেষে একটি জয় ও একটি ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ফ্রান্স। ৩ পয়েন্ট করে নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে যথাক্রমে জার্মানি ও পর্তুগাল। সবার নিচে থাকা হাঙ্গেরির পয়েন্ট ১।