বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কিন্তু হলো কী? ২০১৮-১৯ মৌসুমে আয়াক্সের কাছে হেরে জুভেন্টাস বাদ পড়ল কোয়ার্টার ফাইনালে। পরের দুই মৌসুমে তো শেষ ষোলোতেই বাদ পড়েছে। একবার লিওঁর কাছে হেরেছে, এর পরেরবার পোর্তার হাতে।

মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা, রোনালদো যোগ দেওয়ার আগে থেকেই ‘চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত’ হয়ে যাওয়া লিগ শিরোপার দখলও গত মৌসুমে হারিয়ে ফেলে জুভেন্টাস। টানা ৯ মৌসুম লিগ জেতার পর গত মৌসুমে কোনোরকমে লিগে চতুর্থ হয়ে এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে।

দলের এমন ব্যর্থতার মধ্যেও রোনালদোর গোলের ধারায় ছেদ পড়েনি। বয়স ৩০ পেরোনোর পর থেকেই মূলত স্ট্রাইকার হয়ে যাওয়া রোনালদো জুভেন্টাসে তিন মৌসুমে ১৩৪ ম্যাচে করেছেন ১০১ গোল! কিন্তু তাঁর গোল দলের সাফল্যে অনূদিত হলো না। কেন? ব্যাখ্যায় বুফন টেনে এনেছেন রোনালদোকে পাওয়ার পর জুভেন্টাসের নিজেদের হারিয়ে ফেলার কথা।

রোনালদোর মতো এবার জুভেন্টাস ছেড়েছেন বুফনও। ৪৩ বছর বয়সে এসেও খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন ইতালিয়ান গোলকিপার, জুভেন্টাস ছেড়ে এবার রোনালদোর মতো তিনিও ফিরেছেন পুরোনো ‘ঘরে’—নিজের প্রথম ক্লাব পারমাতে।

default-image

গত মৌসুমেই সিরি ‘আ’ থেকে ইতালিয়ান ফুটবলের দ্বিতীয় বিভাগ সিরি ‘বি’-তে নেমে যাওয়া ক্লাবটির অধিনায়কও তিনি। এই পারমা থেকেই ২০০১ সালে জুভেন্টাসে যাওয়ার পর এর আগেও অবশ্য একবার জুভেন্টাস ছেড়েছিলেন বুফন। ২০১৮-১৯ মৌসুমটা পিএসজিতে কাটিয়ে এবার ২০১৯-এ ফিরে এসেছিলেন ‘ওল্ড লেডি’দের ঘরে। অর্থাৎ, জুভেন্টাসে রোনালদোর প্রথম মৌসুমে বুফন ছিলেন না।

মেক্সিকান ওয়েবসাইট টিইউডিএন ডটকমে সেই মৌসুমের কথাই আগে বললেন বুফন, ‘ও যাওয়ার পর প্রথম মৌসুমে জুভেন্টাসের চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার সুযোগ ছিল, যে বছর আমি প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ে ছিলাম। সে কারণে আমি ঠিক বলতে পারব না আসলে সে মৌসুমে কী হয়েছিল।’

সেবার লিগ জিতলেও চ্যাম্পিয়নস লিগে কোয়ার্টার ফাইনালে বাদ পড়ে জুভ। বাদ পড়ার আগেও ইউরোপের ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বসূচক টুর্নামেন্টটিতে তাদের পারফরম্যান্স যে একেবারে আহামরি ছিল, তা নয়।

গ্রুপ পর্বে দুই ম্যাচ হেরেও গ্রুপ শীর্ষেই ছিল, এরপর শেষ ষোলোর প্রথম লেগে আতলেতিকো মাদ্রিদের মাঠে ২-০ গোলে হেরে যায়। দ্বিতীয় লেগে নিজেদের মাঠে রোনালদোরই দারুণ হ্যাটট্রিকে শেষ আটে ওঠে জুভেন্টাস। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনালে গিয়ে আয়াক্সের কাছে দুই লেগ মিলিয়ে ৩-২ ব্যবধানে হেরে যায়।

default-image

এরপর থেকে তো যেন আরও পেছনের দিকেই গেছে রোনালদোর জুভেন্টাস। ২০১৯-২০ মৌসুমেও লিগ জিতেছে, কিন্তু সেবারও চ্যাম্পিয়নস লিগে শেষ ষোলোতে বিদায়। আর গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগে শেষ ষোলোতেই বিদায়ের পাশাপাশি লিগ শিরোপাও হাতছাড়া!

কেন? বুফনের ব্যাখ্যা, ‘(২০১৯–২০ মৌসুমে) আমি ফেরার পর সিআরসেভেনের (রোনালদো) সঙ্গে দুই বছর খেলার সুযোগ পেয়েছি। ভালোই খেলেছি আমরা। কিন্তু আমার মনে হয়েছে, জুভেন্টাস তখন তাদের একটা দল হয়ে খেলার ডিএনএটা হারিয়ে ফেলেছিল।’

রোনালদো যাওয়ার আগে তিন বছরে দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে খেলেছিল জুভেন্টাস। সে প্রসঙ্গ টেনে বুফন বললেন, ‘২০১৭ সালে আমরা যে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে উঠেছিলাম, সেটা শুধু আমাদের অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ে ভরা একটা দল ছিল বলেই নয়। তার চেয়ে বেশি এটা ছিল যে আমরা একটা ইউনিট হয়ে খেলেছি। দলে জায়গার জন্য খেলোয়াড়দের মধ্যে লড়াই ছিল, যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা অনেক শক্তিশালীও ছিল। রোনালদো যাওয়ার পর সেটা হারিয়ে ফেলেছি আমরা।’

সে কারণেই কি না, এই মৌসুমে জুভেন্টাসের কোচ হয়ে মাসিমিলিয়ানো আলেগ্রি ফেরার পর রোনালদোকে দলে রাখতে খুব একটা আগ্রহী ছিলেন না। ইংলিশ দৈনিক ডেইলি মেইল লিখেছে, আলেগ্রি নাকি জুভেন্টাস বোর্ডকে বলেছিলেন, ‘রোনালদোকে বিক্রি করার চেষ্টা করুন। ও দলের, ক্লাবের উন্নতির পথে বাধা।’

এই মৌসুমে রোনালদো-বুফনকে ছেড়ে দেওয়ার পর পালাবদলের মধ্য দিয়ে যাওয়া জুভেন্টাস একেবারে যে উড়ছে, এমন নয়। লিগে ১৯ ম্যাচ শেষে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে আছে পয়েন্ট তালিকার পাঁচ নম্বরে। চারে থাকা আতালান্তার পয়েন্ট ৩৮। চ্যাম্পিয়নস লিগে অবশ্য চেলসিকে টপকে গ্রুপসেরা হয়েই শেষ ষোলোতে গেছে জুভেন্টাস, যেখানে তাদের অপেক্ষায় ভিয়ারিয়াল।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন