বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কাল ব্রাজিলিয়ান ক্লাবটির ওয়েবসাইটে গিয়ে ধাক্কা খেয়েছিলেন সমর্থকেরা। সেখানে খবর, মেসি সই করেছেন ক্রুজেইরোতে! সরল ভাবনাতে বিষয়টি কোনোভাবেই মিলবে না। ব্রাজিলের দ্বিতীয় বিভাগের এ ক্লাবে মেসি সই করতে যাবেন কোন দুঃখে!

হতে পারে ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি রোনালদোর জীবনের প্রথম ক্লাব এটি, এখানেই কিংবদন্তি হওয়ার পথে ২০০২ বিশ্বকাপজয়ী ব্রাজিলিয়ানের প্রথম পদক্ষেপ। কিন্তু মেসির তো নিশ্চয়ই হঠাৎ এত রোনালদো-প্রেম পেয়ে বসেনি যে সব ছেড়েছুড়ে ব্রাজিলের দ্বিতীয় বিভাগের ক্লাবে যাবেন। শুধু মেসিই নয়, ক্রুজেইরো ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকেও জুভেন্টাস থেকে আনার চেষ্টা করছে বলে ওয়েবসাইটে লেখা!

শেষ পর্যন্ত হিসেব মিলল। ধরা পড়ল হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছিল ক্রুজেইরোর ওয়েবসাইট। অজ্ঞাতনামা হ্যাকার মেসিকে নিয়ে মজাটা নিয়েছেন ক্রুজেইরোর সঙ্গে। ঘটনাটি তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে ক্লাবটি।

default-image

শুক্রবার ক্রুজেইরোর ওয়েবসাইটে মেসির সই করার ভুয়া ঘোষণার সঙ্গে আর্জেন্টাইন তারকার ভুয়া মন্তব্যও প্রকাশ করা হয়। মেসির জবানিতে লেখা হয়, ‘ক্রুজেইরোতে আসতে পেরে আমি ভীষণ খুশি। (কোচ) এন্ডারসন মোরেইরার দলের অংশ হতে পারা আমার জন্য সম্মানের। মিনেইরো স্টেডিয়ামে খেলার জন্য আর তর সইছে না।’

ঘটনাটা এখানে শেষ হলেও হয়তো কোনোমতে হজম করতে পারতেন ক্রুজেইরো সমর্থকেরা। কেননা, মেসি বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেক দলই তাঁকে সই করাচ্ছে—মানে মজা লুটছে। কিন্তু মেসিকে সই করানোর ভুয়া সেই বিবৃতিতে জানানো হয় ক্লাবটি জুভেন্টাস থেকে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে নিয়ে আসার জন্য দর কষাকষিও করছে।

ক্রুজেইরো অবশ্য বসে থাকেনি। দ্রুতই বিবৃতি মুছে ফেলে ক্লাবটি জানায়, তদন্তের মাধ্যমে হ্যাকারকে খুঁজে বের করা হবে, ‘(হ্যাকারের) আক্রমণ খুব দ্রুতই নিয়ন্ত্রণে এনে পোস্টটি মুছে ফেলা হয়েছে। ক্লাবের কোনো তথ্য খোয়া যায়নি। এই আক্রমণের তদন্ত করা হবে।’

এর আগে বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্ত বুরোফ্যাক্সের মাধ্যমে ক্লাবকে জানান মেসি। বার্সা তাঁকে ছাড়তে রাজি নয়। মেসিকে যেতে হলে ৭০ কোটি ইউরো রিলিজ ক্লজ দিয়ে যেতে হবে। এই জটিলতা ভালোভাবে সুরাহা করতে বার্সার সঙ্গে আলোচনায় বসতে চেয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা। কিন্তু বার্সা মেসির সঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসতে রাজি নয়।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন