ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।
ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ছবি: রয়টার্স

মারিও ডিকস, মানুষ হিসেবে ভদ্র গোছের, গোছানোও বটে। কখনো বাঁশি হাতে ফুটবল ম্যাচ পরিচালনা করেন। কখনো আবার থাকেন লাইন্সম্যানের ভূমিকায়। এই কাজে অভিজ্ঞতাও নেহাত কম নয় তাঁর।

কোনো বিতর্ক ছাড়াই তিনি পরিচালনা করেছেন গত বছরের ইউরোপ লিগের ফাইনাল ও ক্লাব বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ম্যাচ। কিন্তু গত মাসে একটা ভুল করে ফেলেছেন নেদারল্যান্ডসের এই রেফারি। ২০২২ বিশ্বকাপের ইউরোপ অঞ্চলের বাছাইপর্বে সার্বিয়ার বিপক্ষে পর্তুগালের ম্যাচে তিনি পর্তুগাল অধিনায়ক ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর একটি গোল দেননি।

সেটির শাস্তি এবার পাচ্ছেন ডিকস। পর্তুগালের সে ম্যাচে তাঁর সঙ্গে মূল রেফারি যিনি ছিলেন, সেই ড্যান ম্যাকেলিয়ে ডিকসকে রাখেননি নিজের রেফারিংয়ের দলে।

বিজ্ঞাপন

ওই ম্যাচে লাইন্সম্যানের ভূমিকা পালন করা মারিও ডিকসের যুক্তি ছিল—বল গোললাইন অতিক্রম করেনি। বিচারটা মানতে পারেননি রোনালদো। বাহু থেকে খুলে ছুড়ে ফেলেছিলেন অধিনায়কত্বের বাহুবন্ধনী। রাগে গজরাতে গজরাতে মাঠ ছেড়েছিলেন পর্তুগালের অধিনায়ক। সেই গোলটি রেফারি দিলে ২-২ গোলে ড্র হওয়া ম্যাচটি জিতেই ফিরত রোনালদোর দল। ম্যাচ শেষে অবশ্য ভুল স্বীকার করে ম্যাচ রেফারি ড্যানি ম্যাকেলিয়ে ক্ষমা প্রার্থনাও করেছিলেন।

default-image

তবে সেই ভুলের ‘শাস্তি’ থেকে বাঁচতে পারেননি মারিও ডিকস। এবারের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের রেফারিংয়ের জন্য নিজের দলে ডিকসকে রাখেননি ডাচ রেফারি ম্যাকেলিয়ে। আজ ম্যাকেলিয়ে জানিয়েছেন ডিকসের জায়গায় তাঁরা ইয়ান ডি ভ্রিয়েসকে রেফারিং দলে রেখেছেন।

ডিকসকে বাদ দেওয়ার কারণ রোনালদোর ওই গোল বাতিল কি না—এমন প্রশ্নের উত্তরে নির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি ম্যাকেলিয়ে, ‘এটা ঠিক যে মারিও ডিকসের জায়গায় দলে ইয়ান ডি ভ্রিয়েসকে নেওয়া হয়েছে। তবে এটা দলের ব্যাপার। মারিওর প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা আছে। কিন্তু আমাদের দলের ভালোও দেখতে হবে। আমরা অবশ্য এই পরিবর্তনের কারণ নিয়ে কিছু বলতে চাই না।’

default-image

ডিকসও ম্যাকেলিয়ের রেফারিং দল থেকে তাঁর বাদ পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। একই সঙ্গে নিজের হতাশার বিষয়টিও জানিয়েছেন ডিকস, ‘আমরা ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের খুব কাছে চলে এসেছি। এই সময়ে দল থেকে বাদ পড়াটা আমার জন্য খুব হতাশার। আমি ৩১ মার্চই ম্যাকেলিয়ের কাছ থেকে খবরটি জেনেছি। তিনি আমার জায়গায় আরেকজন সহকারী নিতে চেয়েছেন।’

এত দিন ম্যাকেলিয়ের সঙ্গে কাজ করার পর এভাবে হঠাৎ করে ইউরোর আগে তাঁর দল থেকে বাদ পড়তে হবে, এটা মেনে নিতে একটু কষ্ট হচ্ছে ডিকসের। ডাচ রেফারি বলেছেন, ‘আমি অবশ্য তাঁর কাছ থেকে আরও বেশি সমর্থন আশা করেছিলাম।আশা করেছিলাম তিনি আমাকে আরও বেশি বুঝতে পারবেন এবং বিশ্বাসও করবেন।’

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন