মেসিই দশকসেরা
মেসিই দশকসেরাছবি: রয়টাসৃ

ফুটবলের রেকর্ড বইয়ে মেসি-রোনালদোর দ্বৈরথ যেন শেষ হওয়ার নয়। ক্যারিয়ার শেষ হতে হতে এই দুজন যেন ফুটবলের সব রেকর্ড নিজেদের করে নেওয়ার পণ করেছেন। ব্যালন ডি’অরের হিসাবেই যেমন মেসি সবার আগে। আন্তর্জাতিক গোল কিংবা শিরোপার দিক দিয়ে আবার রোনালদো ধরাছোঁয়ার বাইরে। এমন হাজারো রেকর্ডের চূড়ায় লেখা হয় মেসি নয় রোনালদোর নাম। এবার ফুটবল ইতিহাস ও পরিসংখ্যানবিষয়ক আন্তর্জাতিক ফেডারেশনের জরিপে রোনালদোকে টেক্কা দিয়েছেন মেসি।

এই সংস্থার জরিপ অনুযায়ী জানা গেছে, গত দশকের, অর্থাৎ ২০১১ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় বার্সেলোনা ও আর্জেন্টিনার লিওনেল মেসি। সংস্থাটি ১০ জন খেলোয়াড়ের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে, যার মধ্যে শীর্ষস্থান দুটিতে মেসি–রোনালদো ছাড়াও আছেন নেইমার, রামোস, নয়্যার, লেফানডফস্কি, মদরিচ, বুফন, ইব্রাহিমোভিচ ও ইনিয়েস্তার মতো তারকারা।

তৃতীয় স্থানে জায়গা করে নিয়েছেন বার্সেলোনা ও স্পেনের কিংবদন্তি মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, যিনি কিনা এখন জাপানের ভিসেল কোবেতে খেলছেন। বর্তমান সময়ে ব্রাজিল ফুটবলের সবচেয়ে বড় তারকা, পিএসজির উইঙ্গার নেইমারের অবস্থান ঠিক তাঁর পরে। রিয়াল মাদ্রিদের অধিনায়ক ও বিশ্বের অন্যতম সেরা ডিফেন্ডার সের্হিও রামোসের জায়গা হয়েছে পাঁচে। অর্থাৎ, ডিফেন্ডার হিসেবে সবার ওপরের স্থানটা রামোসেরই। শুধু সবার ওপরের স্থানটাই নয়, তালিকায় ডিফেন্ডার হিসেবে আর কেউ জায়গাও পাননি। এমনকি ক্লাব ক্যারিয়ারের বিশ্বের সবচেয়ে বেশি শিরোপা জেতা ও ব্রাজিলকে অধিনায়ক হিসেবে সর্বশেষ কোপা আমেরিকা জেতানো রাইটব্যাক দানি আলভেসও।

default-image
বিজ্ঞাপন

রামোসের পরেই স্থান পেয়েছেন জার্মানি ও বায়ার্ন মিউনিখের গোলরক্ষক ম্যানুয়েল নয়্যার। তিনি গোলরক্ষকের চেয়েও যেন একটু বেশি কিছু। নয়্যারের পরেই আছেন তাঁর ক্লাব-সতীর্থ, বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার দৌড়ে যে দুজন খেলোয়াড় মেসি-রোনালদোর একাধিপত্যকে খর্ব করেছেন, তাঁদের মধ্যে একজন—পোলিশ স্ট্রাইকার রবার্ট লেফানডফস্কি। এর পরের দুই জায়গা নিজেদের করে নিয়েছেন জুভেন্টাস ও ইতালির কিংবদন্তি গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি বুফন ও এসি মিলানের কিংবদন্তি সুইডিশ স্ট্রাইকার ইব্রাহিমোভিচ। শেষ স্থানটা রিয়াল মাদ্রিদের ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার লুকা মদরিচের, লেফানডফস্কির পাশাপাশি মেসি-রোনালদোর আধিপত্য ভেঙেছিলেন যিনি।

তবে এ তালিকায় দানি আলভেসের পাশাপাশি রিয়ালকে টানা তিনবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতাতে সাহায্য করা টনি ক্রুস কিংবা কেইলর নাভাসের অনুপস্থিতি প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে যথেষ্টই।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন