কিন্তু ম্যাচের শুরুতে দুই দলের খেলা দেখে তেমনটা মনে হয়নি। দশ মিনিটেই এগিয়ে গিয়েছিল কালিয়ারি। পাওলো দিবালার পা থেকে বল কেড়ে নিয়ে দুর্দান্ত এক প্রতি আক্রমণে রোমানিয়ান মিডফিল্ডার রাজভান মারিন বল বাড়ান ইতালি জাতীয় দলের ফরোয়ার্ড জোয়াও পেদ্রোর দিকে। পেদ্রোর গোল করতে সমস্যা হয়নি। এ নিয়ে জুভেন্টাসের বিপক্ষে কালিয়ারির হয়ে ম্যাচের প্রথম দশ মিনিটের মধ্যে গোল করা খেলোয়াড়দের ছোট্ট তালিকায় ঢুকে গেলেন ব্রাজিলীয় বংশোদ্ভূত এই ফরোয়ার্ড। তাঁর আগে এই কৃতিত্ব ছিল রিকিওতি গ্রেত্তি (১৯৭১), লুইস অলিভিয়েরা (১৯৯৫), লুকা গালিয়ানোর (২০২০)। এর মধ্যে অলিভিয়েরার সঙ্গে নিজের মিল আরেকটু বেশিই খুঁজে পাবেন পেদ্রো। তাঁর মতো অলিভিয়েরাও যে ব্রাজিলীয় বংশোদ্ভূত ছিলেন! পেদ্রো ইতালির হয়ে খেললেও অলিভিয়েরা পরে খেলেছিলেন বেলজিয়ামের হয়ে।

২৩ মিনিটেই সমতায় ফেরার সুযোগ পায় জুভরা। কিন্তু লুকা পেল্লেগ্রিনির সে গোলটা হয়নি ফরাসি মিডফিল্ডার আদ্রিয়াঁ রাবিওর কারণে। রাবিওর হাতে বল লেগেছিল, ফলাফল, গোল বাতিল।

default-image

এত কিছুর পরেও ম্যাচে এগিয়ে থাকার স্বস্তি নিয়ে বিরতিতে যেতে পারেনি কালিয়ারি। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ আগে জুভেন্টাসকে সমতায় ফেরান ডাচ ডিফেন্ডার ম্যাটাইস ডি লিখট। ৪৫ মিনিটে ছোট্ট কর্নারের মাধ্যমে কিছুক্ষণ মাঠের বাঁ প্রান্তে লেফটব্যাক লুকা পেল্লেগ্রিনির সঙ্গে বল আনা-নেওয়া করেন কলম্বিয়ান উইঙ্গার হুয়ান কুয়াদ্রাদো। বল পেয়েই চকিতে কালিয়ারির একজন ডিফেন্ডারকে ছিটকে বিপজ্জনকভাবে বক্সে ঢুকে যান, ক্রস বাড়ান মাঝখানে। সেখান থাকা ডি লিখটের মাথা ছুঁইয়ে গোল করতে সমস্যা হয়নি মোটেও।

কালিয়ারির গোলে নিজের ভুলের প্রায়শ্চিত্ত দিবালা করেছেন শেষ দিকে এসে, সার্বিয়ান স্ট্রাইকার দুসান ভ্লাহোভিচকে দিয়ে গোল করিয়ে। ৭৫ মিনিটে ভ্লাহোভিচের গোলে এগিয়ে যায় জুভেন্টাস। এরপর আর অঘটন ঘটেনি কোনো, ২-১ স্কোরলাইন নিয়েই ম্যাচ শেষ করে দুই দল।

এই জয়ের মাধ্যমে ৩২ ম্যাচে ৬২ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার চতুর্থ স্থানে নিজেদের অবস্থান পোক্ত করল জুভেন্টাস। এক ম্যাচ কম খেলে শীর্ষে থাকা এসি মিলানের পয়েন্ট ৬৭।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন