বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

টুলেইন বিশ্ববিদ্যালয়ের দলটা অবশ্য ফুটবল খেলে না, খেলে আমেরিকান ফুটবল। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সবচেয়ে বড় অনুদান আসে আভরাম গ্লেজার ও তাঁর স্ত্রী জিলের কাছ থেকে। কয়েক দিন আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে যান গ্লেজাররা। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের আমেরিকান ফুটবল দলকে প্রেরণাদায়ী বক্তব্যও দেন।

বক্তব্য দেওয়ার দরকারও হয়তো ছিল। টুলেইন বিশ্ববিদ্যালয়ের আমেরিকান ফুটবল দলটা মৌসুমে এ পর্যন্ত ৯ ম্যাচ খেলেছে, তার মধ্যে জিতেছে মাত্র একটি, বাকি ৮ ম্যাচেই হেরেছে। তো এমন দলকে অনুপ্রেরণা জোগাতে কী বলতে পারতেন গ্লেজাররা? হাতের কাছে, চোখে দেখা রোনালদোর উদাহরণ তো আছেই।

default-image

রোনালদো কীভাবে প্রতিনিয়ত নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টাতেই আজকের রোনালদো হয়েছেন, সে গল্প তো সবার জানা। রোনালদো বলুন বা মেসি, নেইমার কিংবা কিলিয়ান এমবাপ্পে, মো সালাহ হোন বা আর্লিং হরলান্ড...সময়ের সেরাদের কেউই কখনো পরিশ্রম ছাড়া আজকের অবস্থানে আসতে পারেননি। প্রকৃতি প্রদত্ত প্রতিভা সবারই থাকে, একভাবে নয়তো অন্যভাবে। কিন্তু প্রাণান্ত পরিশ্রম ছাড়া, কঠোর আত্মত্যাগ ছাড়া কারও পক্ষেই সেরাদের একজন হওয়া সম্ভব নয়।

সবার কথা তো আর ম্যান ইউনাইটেডের মালিক বলতে যাবেন না, তিনি বললেন তাঁর দলের রোনালদোর কথাই। টুলেইন বিশ্ববিদ্যালয়ের দলকে প্রেরণা জোগাতে গিয়ে অবশ্য রোনালদোর বিষয়ে একটা ভুল তথ্যও দিয়ে ফেলেছেন! রোনালদো প্রথম দফায় ম্যান ইউনাইটেডে যোগ দিয়েছিলেন ১৮ বছর বয়সে, তার আগে স্পোর্তিং লিসবনের হয়ে পর্তুগিজ যুবরাজের পেশাদার ফুটবলে অভিষেক হয়েছিল। কিন্তু নিজের বক্তব্যে রোনালদোর প্রথম দফায় ইউনাইটেডে যোগ দেওয়ার বয়সে ভুল করে ফেলেন আভরাম গ্লেজার।

তা যা-ই হোক, সেটি তো আর বক্তব্যের মূল বিষয় ছিল না। বরং রোনালদোর পরিশ্রমের উদাহরণই এখানে মুখ্য। আভরাম গ্লেজার সেটিই তুলে ধরলেন এভাবে, ‘তিনি (রোনালদো) আমাদের ক্লাবে যোগ দিয়েছিলেন ১৬ বছর বয়সে (আসলে ১৮ বছরে)। আর যেদিন থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দিয়েছেন, সেদিন থেকেই তিনি অনুশীলনে যেতেন সবার আগে, অনুশীলন ছাড়তেন সবার শেষে।’

সেখান থেকেই টুলেইন বিশ্ববিদ্যালয়ের দলকে শিখতে উদ্বুদ্ধ করলেন গ্লেজার, ‘তাই বলব, অসাধারণ অ্যাথলেটরা এমনি এমনিই অসাধারণ হয়ে যান না। জন্ম থেকেই তাঁরা এমন অসাধারণ নন। তাঁরা অন্যদের চেয়ে বেশি পরিশ্রম করেন, কঠোর পরিশ্রম করেন, নিজের সেরাটা সব সময়ই দেন। তোমাদেরও নিজের সেরাটা দিতে হবে। মনোযোগের সবটুকু ধরে রেখে চেষ্টা করতে হবে নিজের সম্ভাব্য সর্বোচ্চটা অর্জনের।’

গ্লেজারের বক্তব্য আবার টুলেইনের ফুটবল দলের টুইটার অ্যাকাউন্টেও দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু পরে সেটা মুছে ফেলা হয়।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন