দুই বন্ধু মেসি ও নেইমারের মধ্যে কি আবারও ‘মিল’ হবে?
দুই বন্ধু মেসি ও নেইমারের মধ্যে কি আবারও ‘মিল’ হবে?ছবি : রয়টার্স

মাঠে মেসি ও নেইমারকে কি আবার একসঙ্গে দেখা যাবে?

চার বছর ধরে ফুটবলপ্রেমীদের আলোচনার টেবিল উত্তপ্ত হয়েছে এই এক বিষয়ে। উত্তাপটা এবার আরেকটু বাড়িয়ে দিয়েছেন নেইমারের সাবেক মুখপাত্র ও বার্সেলোনার সাবেক স্কাউট আন্দ্রে কুরি। সঙ্গে বাড়িয়ে দিয়েছেন বার্সা সমর্থকদের আশাও। জানিয়েছেন, বার্সেলোনার নতুন সভাপতি হোয়ান লাপোর্তাই পারবেন, নেইমারকে আবারও বার্সার বিখ্যাত নীল-মেরুন জার্সি পরিয়ে মেসির সঙ্গে খেলাতে।

বিজ্ঞাপন

সেই ২০১৭ সালে বার্সেলোনা ছেড়ে নেইমারের পিএসজির যাওয়ার পর থেকেই নেইমারের বার্সায় ফেরার আলোচনা চলছে। মেসির ছায়ায় না থেকে বরং নিজের মতো করে একটা ক্লাবের সবচেয়ে বড় তারকা হবেন, সে আশায় পিএসজিতে নাম লিখিয়েছিলেন নেইমার। ভুল ভাঙতে সময় লাগেনি। প্রিয় বন্ধুর সঙ্গে আরও একটিবার খেলার জন্য কম চেষ্টা করেননি এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড।

default-image

ওদিকে মেসিও চেয়েছেন, বন্ধু ফিরে আসুক, তাঁর হাত থেকে ব্যাটনটা নিয়ে বার্সায় তাঁর পরের নেতা হোক। কিন্তু নিজে চাইলেই তো হয় না, একটা দলবদলের জন্য সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সম্মতি লাগে। আর দলবদলটা যদি নেইমারের মতো কারও হয়, তাহলে তো কথাই নেই। সংশ্লিষ্ট সবার সম্মতি হবেই বা কোত্থেকে?

জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউ বার্সার সভাপতি থাকার সময়ে ইউরোপের বেশ কিছু ক্লাবের সঙ্গেই তো দলবদল নিয়ে ঝামেলা হয়েছিল বার্সার, বেশ কয়েকটি ক্লাবের ‘চক্ষুশূল’ হয়ে গিয়েছিল কাতালানরা, সেই তালিকায় সবার ওপরে সম্ভবত ছিল পিএসজি। বার্সার অনেক চেষ্টার পরও ব্যাটে-বলে মেলেনি, পিএসজি বলতে গেলে বার্সাকে চরকির মতো ঘুরিয়েছে! তাই এখনো নেইমার আছেন প্যারিসে, মেসির ঠিকানা যথারীতি বার্সায়।

default-image

কিন্তু মেসি-নেইমারের একসঙ্গে খেলার জন্য যে নেইমারকে বার্সাতেই যেতে হবে, তা তো নয়। মেসিও তো চাইলে যেতে পারেন নেইমারের পিএসজিতে! বিশেষ করে, আগামী জুনে বার্সায় মেসির শেষ হতে যাওয়া চুক্তিটাই আশাবাদী করে তুলেছে পিএসজি সমর্থকদের। অনেকে মতে, নিজের ক্লাবের কোনো সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা না দেখতে পেয়ে বিরক্ত মেসি মৌসুম শেষে অভাবনীয় ঘটনাটা ঘটিয়েই ফেলবেন। ছাড়বেন বার্সেলোনা। আর মেসির সম্ভাব্য গন্তব্য হিসেবে পিএসজির নামটা ওপরের দিকেই।

বিজ্ঞাপন

কুরি অতশত জটিলতার মধ্যে দিয়ে যাননি। তাঁর মতে, কোনো অভাবনীয় ঘটনা ঘটবে না। শেষমেশ নিজের প্রিয় ক্লাব বার্সাতেই থেকে যাবেন মেসি। আর এখন যেহেতু মেসির অপছন্দের সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউ বা তাঁর পক্ষের কেউ ক্ষমতায় নেই, আছেন মেসির পছন্দের হোয়ান লাপোর্তা, কুরির মতে, এটিই মেসিকে বার্সেলোনায় রেখে দেবে। শুধু মেসিকেই রেখে দেবে না, কুরি মনে করছেন, লাপোর্তা-ফ্যাক্টর পিএসজি থেকে নেইমারকেও বার্সায় নিয়ে আসবে।

default-image

‘আমি খুশি হব যদি নেইমার পিএসজি ছেড়ে বার্সেলোনায় আসে। পিএসজি নয়, বরং আবারও বার্সেলোনাতেই এই দুজনের (মেসি-নেইমার) মিল হবে। আমার মনে হয় না অন্য কোনো ক্লাবের হয়ে এরা দুজন একসঙ্গে খেলবে’—আর্জেন্টাইন সংবাদমাধ্যম এল লিতোরালে বলেছেন কুরি।

বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে যাওয়ার সিদ্ধান্তটা যে ভুল ছিল, নেইমার সেটা এই কুরিকেই প্রথম জানিয়েছিলেন। তাই চেয়েছিলেন প্রিয় ক্লাবে ফিরতে। কুরির সাহায্যে ২০১৯ সালে প্রিয় ক্লাবে ফেরার জন্য নেইমার যে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিলেন, সেটাও জানিয়েছেন কুরি, ‘বার্সেলোনাতে ওদের (মেসি ও নেইমার) বিচ্ছেদ হওয়া একদমই উচিত হয়নি। দুবছর আগে বার্সেলোনা আমাকে বলেছিল, নেইমার যাতে ফিরতে পারে, সে ব্যাপারটা দেখতে। নেইমারকে পিএসজি থেকে বার্সায় ফেরানোর ব্যাপারে আমরা অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিলাম।’

দুবছর আগে তিনি যে কাজটা করতে পারেননি, সেটাই বার্সেলোনার বর্তমান সভাপতি লাপোর্তা করে দেখাবেন বলে আশাবাদ কুরির, ‘লাপোর্তা অনেক ভালো একজন সভাপতি। আমার ধারণা, সে-ই পারবে এই দুজনকে আবারও বার্সেলোনার হয়ে খেলাতে। বার্সেলোনার দুয়ার নেইমারের জন্য সব সময় খোলা। এটা বার্সেলোনাও জানে, নেইমারও। তারা জানে নেইমারের পিএসজি যাওয়ার সিদ্ধান্তটা ভুল ছিল। ব্যাপারটা আরও বেশি স্পষ্ট হয়েছিল যখন নেইমার নিজেই ব্যাপারটা সবার সামনে স্বীকার করে।’

default-image

মেসি যে বার্সেলোনা ছাড়বেন না, সে ব্যাপারেও নিঃসন্দেহ নেইমারের সাবেক এই মুখপাত্র, ‘আমার মনে হয় না মেসি বার্সেলোনা ছাড়বে। ওর ইতিহাস বার্সার জার্সিতেই শুরু হয়েছে, শেষও হবে এখানে। আমি এ ব্যাপারে একেবারে নিঃসন্দেহ, কারণ ও এমন একজন খেলোয়াড় যাকে বিশ্বের সবাই সম্মান করে। ও আর্জেন্টিনার এক প্রতিচ্ছবি, যে বিশ্বের বিভিন্ন কোণে তার দেশের প্রতিনিধিত্ব করে।’

মেসি যদি বার্সেলোনা না ছাড়েন, বার্সেলোনার সমর্থকদের কাছে এর চেয়ে বড় সুসংবাদ আর হতে পারে না। এর পাশাপাশি কুরির কথামতো নেইমারকেও যদি লাপোর্তা বার্সেলোনায় ফেরাতে পারেন, তাহলে তো একদম সোনায় সোহাগা!

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন