ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ চালুর পর এক মৌসুমে কোনো দলের কাছে দুই ম্যাচ মিলিয়ে ইউনাইটেডের এত বড় ব্যবধানে হার দেখা যায়নি। এর আগে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ইউনাইটেডের ঘর থেকে ৫–০ গোলে জয় পেয়েছে লিভারপুল।

১৯৯২ সালে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ চালুর পর এক মৌসুমে কোনো দলের বিপক্ষে দুই ম্যাচ মিলিয়ে এটাই সবচেয়ে বড় ব্যবধানের হার ইউনাইটেডের। ইতিহাসের আরও পেছনের পাতা ঘাঁটলে বোঝা যায় ইউনাইটেডের এই হারের ক্ষত কতটা গভীর।

default-image

প্রিমিয়ার লিগ চালুর আগে এই প্রতিযোগিতাটি ইংল্যান্ডের প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগ নামে পরিচিত ছিল। সেখানেও ইউনাইটেড এর চেয়ে বড় ব্যবধানে শেষ কবে হেরেছে তা খুঁজে বের করাও গবেষণার বিষয়। ইতিহাস বলছে, ১৮৯৩ সালে সান্ডারল্যান্ডের বিপক্ষে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে মিলিয়ে দুই ম্যাচে মোট ১১–০ গোলে হেরেছিল ইউনাইটেড।

সে বছর ৪ মার্চ ঘরের মাঠে সান্ডারল্যান্ডের কাছে ৫–০ গোলে হারে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে সবচেয়ে সফল ক্লাবটি। এরপর ৪ এপ্রিল সান্ডারল্যান্ডের মাঠে হারে ৬–০ গোলে। মাঝে এই ১২৯ বছরের মধ্যে ইংল্যান্ডের শীর্ষস্থানীয় লিগে কাল রাতেই সবচেয়ে বড় ব্যবধানে হারল ওল্ড ট্রাফোর্ডের ক্লাবটি। তাও আবার এমন এক ক্লাবের বিপক্ষে হারল, যাদের সঙ্গে তাদের বৈরিতা ইতিহাসেরই অংশ!

শুধু প্রিমিয়ার লিগে গোল হজমের হিসেব করলেও ইউনাইটেডের জন্য লিভারপুল যেন মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। এ সংস্করণ চালুর পর লিভারপুলের কাছে ৭৬ গোল হজম করেছে ইউনাইটেড। প্রিমিয়ার লিগে আর কোনো দলের কাছে এত গোল হজম করেনি ইউনাইটেড।

এবার লিভারপুলের কাছে নিঃশর্ত আত্মসমর্পনের পেছনে ‘লক্ষ্যহীন’খেলাকে দুষছেন ফার্নান্দেজ। লিভারপুল যেখানে শিরোপার জন্য খেলছে ইউনাইটেডের সেখানে কোনো লক্ষ্য নেই বলে মনে করেন পর্তুগিজ তারকা।

স্কাই স্পোর্টসকে বলেছেন, ‘সমর্থকদের কাছে ক্ষমা চাই। এতে হয়তো কষ্টমোচন হবে না কিন্তু আমরা এটুকুই করতে পারি। ভক্তদের আমাদের কাছে আরও বেশি কিছু প্রাপ্য। লিভারপুল শিরোপার জন্য লড়ছে, আমরা কোনো কিছুর জন্যই লড়ছি না, এটাই পার্থক্য।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন