default-image

সপ্তাহের শুরুতে নরউইচের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করেছিলেন রোনালদো। সে ম্যাচে হ্যাটট্রিকের উদ্‌যাপনে বহু ব্যবহৃত এক দৃশ্য দেখা গিয়েছিল। বলটা জার্সির নিচে ঢুকিয়ে অনাগত সন্তানের আগমনবার্তার কথা জানিয়েছিলেন রোনালদো।

মহাতারকাকে নিয়মিত যাঁরা অনুসরণ করেন, তাঁরা অবশ্য আগে থেকেই জানতেন রোনালদো ও তাঁর সঙ্গী জর্জিনা রদ্রিগেজ যমজ সন্তানের অপেক্ষায় দিন কাটাচ্ছেন। ওদের একজন ছেলে ও অন্যজন মেয়ে—এটাও জানা অনেকের।

যেকোনো দিন জোড়া সুখবর পাওয়া যাবে, এমনটাই জানতেন সবাই। সোমবার রাতে হঠাৎ স্তব্ধ করে দিলেন রোনালদো। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানালেন নিজের কষ্টের কথা, ‘খুব গভীর কষ্ট নিয়ে জানাচ্ছি, আমাদের ছেলেশিশুটি মারা গেছে। যেকোনো মা–বাবার জন্যই এটা সবচেয়ে কষ্টকর। মেয়েশিশুটি জন্ম নেওয়ায় এই কষ্টের মুহূর্তে খানিকটা আশা নিয়ে লড়াই করতে পারছি। চিকিৎসক ও নার্সদের যথাসাধ্য চেষ্টার জন্য ধন্যবাদ জানাই। এই অপূরণীয় ক্ষতিতে আমরা বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছি এবং কঠিন সময় কাটিয়ে উঠতে ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষার অনুরোধ করছি সবার কাছে। আমাদের ছেলেশিশু, তুমি আমাদের দেবদূত। আমরা সব সময় তোমাকে ভালোবাসব।’

পরদিন লিভারপুলের মাঠে যে রোনালদোর আর যাওয়া হচ্ছে না, সেটা তখনই বোঝা গিয়েছিল। কিন্তু কিংবদন্তির প্রতি ভালোবাসা জানাতে, এমন শোকের মুহূর্তে তাঁকে শক্তি জোগাতে এক উদ্যোগ নেয় লিভারপুল সমর্থকগোষ্ঠী। রোনালদোর জার্সি নম্বর সাত। তাই ম্যাচের সপ্তম মিনিটে অ্যানফিল্ডের সব দর্শক উঠে দাঁড়িয়ে এক মিনিট ধরে হাততালি দিলেন। সঙ্গে গাইছিলেন নিজেদের ক্লাব সংগীত ‘ইউ উইল নেভার ওয়াক অ্যালোন’।

তবে সেদিন এই গান ক্লাবের প্রতি ভালোবাসা থেকে নয়, তাঁরা গান গেয়েছেন সদ্যোজাত পুত্রসন্তান হারানো ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর জন্য। সন্তান হারানো বাবার কষ্ট যে শুধুই তাঁর একার নয়, সেটি বোঝাতেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা ভুলেছিলেন লিভারপুলের সমর্থকেরা। রোনালদোর হৃদয় ছুঁয়ে গেছে এ ঘটনা। ইনস্টাগ্রামে ওই সময়ের ভিডিও পোস্ট করে রোনালদো আজ ধন্যবাদ দিয়েছেন লিভারপুলের সমর্থকদের, ‘এক বিশ্ব…এক খেলা…এক বৈশ্বিক পরিবার…ধন্যবাদ, অ্যানফিল্ড। আমি ও আমার পরিবার কখনোই এই সহমর্মিতার কথা ভুলব না।’

default-image

এর আগে রোনালদো পরিবারের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন তাঁর দুই বোন। এলমা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন, ‘লিভারপুল—সবকিছুর জন্য তোমাদের ধন্যবাদ। তোমরা আজ যা করেছ, সেটা কখনোই ভুলব না আমরা।’ লেখার শেষে ভালোবাসার একটি ইমোজি দিয়েছেন এলমা। রোনালদোর আরেক বোন কাতিয়া লিখেছেন, ‘এটা ফুটবলকে ছাপিয়ে যাওয়া ঘটনা।’ সমবেত কণ্ঠে ‘ইউ উইল নেভার ওয়াক অ্যালোন’ গানটির একটি ভিডিও দিয়ে এই বার্তা দিয়েছেন কাতিয়া।

লিভারপুল সমর্থকদের এ উদ্যোগে প্রশংসার বন্যা বয়ে যাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। বার্সেলোনা, টটেনহাম ও লেস্টারের সাবেক ফুটবলার ও ফুটবল বিশেষজ্ঞ গ্যারি লিনেকার যেমন লিখেছেন, ‘রোনালদোর জন্য খুবই সুন্দর, হৃদয়নিংড়ানো ও অসাধারণ করতালি। খুব ভালো করেছ লিভারপুল!’ ইউনাইটেডের সাবেক তারকা গ্যারি নেভিল বলেছিলেন, ‘আমি নিশ্চিত ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো যদি এটা দেখে থাকে, তবে এটা স্বাগত জানিয়েছে।’

শোক সামলেই এরই মধ্যে অনুশীলনে ফিরেছেন রোনালদো। তবে আগামী শনিবার আর্সেনালের মাঠে তাঁকে দেখা যাবে কি না, সেটা বলা যাচ্ছে না। অন্তর্বর্তীকালীন কোচ রালফ রাংনিক এমন পরিস্থিতিতে রোনালদোর মানসিক অবস্থা নিয়েই বেশি ভাবছেন, ‘এর চেয়ে খারাপ কিছু হতে পারে না। আমার নিজের দুই ছেলে আছে, ফলে ভালোভাবেই ওর কেমন লাগছে সেটা বুঝতে পারছি। আমরা সবাই ওর সঙ্গে আছি। আশা করি, একসঙ্গে থেকে শক্তি পাবে সে ও তার পরিবার।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন