বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গতকাল বাংলাদেশের ১-০ গোলের জয় ছাপিয়ে আলোচনায় এখন জামালের শর্টস-কাণ্ড। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। এমন ভুল নিয়ে অনেকে নানা মন্তব্য করছেন। কেউ করছেন রসিকতাও। এমনিতে জামাল ক্লাব, জাতীয় দল দুই ভূমিকাতেই ৬ নম্বর জার্সি পরেন। মালদ্বীপের গতকাল শুরু হওয়া সাফ চ্যাম্পিয়নশিপেও ব্যতিক্রম হয়নি। কিন্তু ছয় ৬ নম্বর জার্সি পরে নামলেও জামালের পরনে ছিল ৫ নম্বর শর্টস!

পাঁচ বছর পর জাতীয় দলে ফেরা ডিফেন্ডার রেজাউলের জন্য এবার বরাদ্ধ ৫ নম্বর জার্সি। মালদ্বীপ এসে জ্বরের কারণে রেজা আপাতত দলের বাইরে। তবে গতকাল ম্যাচের আগে ড্রেসিংরুমেই ছিল রেজার ৫ নম্বর জার্সি ও শর্টস। ৫ আর ৬ নম্বর জার্সি সেট কাছাকাছি থাকায় তালগোলে ৫ নম্বর শর্টস পরেই মাঠে চলে যান জামাল।

default-image

আসলে ঠিক কী ঘটেছিল? মালের টার্ফ মাঠে আজ বাংলাদেশ দলের অনুশীলনে জামালকে দেখে সবারই কৌতূহলী প্রশ্ন। কীভাবে এমন কাণ্ড হলো জামাল নিজেও অবাক। প্রথম আলোকে বললেন, ‘কীভাবে যে কী হলো, আমি নিজেই বুঝতেছি না। এমনটা তো হওয়ার কথা নয়। কিন্তু তারপরও হয়ে গেছে। কী আর বলব।’ বলতে বলতে পাশেই দাঁড়ানো বাংলাদেশের দলের সহকারী স্টাফ মহসিনের দিকে তাকিয়ে বলেন, ‘তুই কোথায় রেখেছিলি শর্টস। ঠিকমতো রাখবি না সবকিছু?’ শুনে মহসিন বলেন, ‘সব ঠিকঠাকমতোই রাখা ছিল। আপনি দেখে পরবেন না?’

দশম মিনিটে বিষয়টা নজরে পড়ে চতুর্থ রেফারির। তিনি ডাগআউটে বাংলাদেশ দলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সঙ্গে সঙ্গে জামালকে বলা হয় শর্টস বদলাতে।

শুধু জামাল কেন, রেফারি, সহকারী রেফারি কারও চোখেই বিষয়টা ধরা পড়ল না! অথচ ম্যাচের আগে কয়েকটা ধাপ পেরিয়ে যেতে হয় ফুটবলারদের। অবশেষে দশম মিনিটে বিষয়টা নজরে পড়ে চতুর্থ রেফারির। তিনি ডাগআউটে বাংলাদেশ দলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সঙ্গে সঙ্গে জামালকে বলা হয় শর্টস বদলাতে।

বাংলাদেশ দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাশ জানালেন বিস্তারিত, ‘ড্রেসিংরুমে ১ থেকে ২৩ নম্বর পর্যন্ত সব জার্সি-প্যান্ট পাশাপাশি থাকে। জামাল ভুল করে অন্য শর্টস পরে ফেলেছে। চতুর্থ রেফারি বিষয়টা আমাদের জানানোর পর সঙ্গে সঙ্গে মহসিনকে বলি, ড্রেসিংরুম থেকে ৬ নম্বর শর্টস নিয়ে আসতে। ফলে জামালের আর ড্রেসিংরুমের ভেতরে যেতে হয়নি। ড্রেসিংরুমের বাইরে দাঁড়িয়ে শর্টস বদল করে মাঠে ফিরে গেছে।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন