অ্যাথলেটিক বিলবাওকে ৪-০ গোলে হারিয়ে কোপা দেল রে’র শিরোপা জিতেছে বার্সেলোনা।
অ্যাথলেটিক বিলবাওকে ৪-০ গোলে হারিয়ে কোপা দেল রে’র শিরোপা জিতেছে বার্সেলোনা।ছবি : রয়টার্স

যুগে যুগে এমন কিছু ফুটবলার আসেন, যাঁকে সতীর্থ হিসেবে পাওয়ার জন্য সব ফুটবলার উন্মুখ হয়ে থাকেন। এককালে দি স্তেফানো-পেলেরা ছিলেন, এরপর এলেন ম্যারাডোনা-ক্রুইফ-বেকেনবাওয়াররা, এ যুগে মেসি আর রোনালদো। ক্যারিয়ারের কোনো না কোনো পর্যায়ে এই দুজনকে সতীর্থ হিসেবে পাওয়ার আশা যে মোটামুটি প্রত্যেকটা খেলোয়াড়ই করে থাকেন, এটা মোটামুটি বেশির ভাগ খেলোয়াড়ের কথা শুনেই বোঝা যায়। বা ধরুন, কোনো খেলোয়াড় যখনই বার্সেলোনা কিংবা জুভেন্টাসে যোগ দেন, নতুন ক্লাবে আসার পর তাঁর মুখ থেকে বের হওয়া প্রতিটা কথার সঙ্গে চুইয়ে চুইয়ে পড়ে মেসি-রোনালদোকে সতীর্থ হিসেবে পাওয়ার আনন্দ। এ নতুন কিছু নয়।

বার্সেলোনায় এখন যেমন, একঝাঁক নতুন খেলোয়াড় প্রতিনিয়ত খেলছেন মেসির সঙ্গে। পূরণ করছেন নিজের স্বপ্ন। অনুশীলনের মাঠ কিংবা ম্যাচের শ্বাসরুদ্ধকর মুহূর্তে, মেসির পায়ের জাদু মাঠে দাঁড়িয়ে চাক্ষুষ দেখার সুযোগ হচ্ছে সবার। এ তালিকায় বার্সেলোনার বিখ্যাত অ্যাকাডেমি ‘লা মাসিয়া’ থেকে মূল দলে সুযোগ পাওয়া আনসু ফাতি, রিকি পুচ, আয়লাই মরিবা, অস্কার মিঙ্গেসা, রোনালদ আরাউহোরা যেমন আছেন, আছেন পেদ্রি, মিরালেম পিয়ানিচ, সের্হিনিও দেস্ত, ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং, আতোয়ান গ্রিজমানের মতো অন্য ক্লাব থেকে ক্যাম্প ন্যু তে পা রাখা খেলোয়াড়েরাও।

বিজ্ঞাপন

যে খেলোয়াড়ের সঙ্গে খেলার এত দিনের সাধ, সে খেলোয়াড়কেই যদি সতীর্থ হিসেবে পাওয়া যায়, ট্রফি জেতা যায় একসঙ্গে—এ যেন বার্সার যেকোনো খেলোয়াড়ের জন্যই আকাশের চাঁদ হাতে পাওয়ার মতো ব্যাপার। গত রাতে যেমন, অ্যাথলেটিক বিলবাওকে ৪-০ গোলে হারিয়ে কোপা দেল রে’র শিরোপা জিতেছে বার্সেলোনা। প্রিয় খেলোয়াড়, প্রিয় ‘বড় ভাই’, প্রিয় অধিনায়কের সঙ্গে শিরোপা জেতার আনন্দ ফাতি-পুচদের মধ্যে ছড়িয়ে গেছে, যাওয়াটাই স্বাভাবিক। যে কারণে ম্যাচ জেতার পর ট্রফিটাক সামনে রেখে মেসির সঙ্গে ছবি তোলার ধুম পড়ে গিয়েছিল বার্সেলোনার খেলোয়াড়দের মধ্যে!

default-image

ফরাসি সংবাদমাধ্যম লে’ইকুইপের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, দলের অধিনায়ক মেসির সঙ্গে বার্সার প্রত্যেক খেলোয়াড় লাইন ধরে ছবি তুলছেন একের পর এক! প্রথমে এলেন দলের মিডফিল্ডার পেদ্রি। এরপর একে একে দলের তৃতীয় গোলরক্ষক ইনাকি পিনিয়া, মিডফিল্ডার ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং, রাইটব্যাক সের্হিনিও দেস্ত, মিডফিল্ডার মিরালেম পিয়ানিচ, উইঙ্গার আনসু ফাতি, ডিফেন্ডার রোনালদ আরাউহো—সবাই এসে মেসির সঙ্গে ছবি তুলে গেলেন। হাজার হোক, বহুদিন পর কাতালানপাড়ায় একটা শিরোপা এসেছে, সেটা নিয়ে দলের অধিনায়কের সঙ্গে ছবি একটা না তুললে কি আর চলে? স্মৃতি থেকে যাক একটা!

default-image

সবাই ছবি তুললেও দলের ফরাসি সেন্টারব্যাক ক্লেমঁ লংলের মধ্যে অবশ্য মেসিকে পাশে নিয়ে ছবি তোলার তেমন আগ্রহ দেখা যায়নি। পরে তুলেছেন কি না, কে জানে, অন্তত ভিডিওতে দেখা গেছে, লংলে পাশে দাঁড়িয়ে আছেন, অনুজ সতীর্থদের 'বাচ্চামি' দেখে হাসছেন! কে জানে, এর আগে মেসির সঙ্গে একবার লিগ আর একবার সুপারকোপা জিতেছেন দেখেই কি না, ফ্রান্সের এই সেন্টারব্যাকের মধ্যে ছবি তোলার ওই আগ্রহটা দেখা যায়নি!

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন