বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

কিন্তু তাতে কী হয়েছে? খেলোয়াড় হিসেবে তেমন নাম কামাতে না পারলেও প্রায়ই বেফাঁস কথাবার্তা বলে আলোচনায় আসেন সাবেক এই ফরোয়ার্ড। এবার যেমন আলোচনায় এলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে নিয়ে মন্তব্য করে। সাবেক এই স্ট্রাইকার দাবি করেছেন, রোনালদোকে একবার হোয়াটসঅ্যাপে বকে দিয়েছিলেন তিনি!


খেলা সরাসরি সম্প্রচার বা লাইভ স্ট্রিমিংয়ের জন্য এখন বেশ পরিচিতি পেয়েছে টুইচ নামের প্ল্যাটফর্মটি। ২০১৪ সালে ৯ কোটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলারে কিনে নেয় আমাজন। বর্তমানে দেড় কোটি সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছেন সাইটটিতে। এঁদের মধ্যে অনেক ফুটবলারও রয়েছেন। ইতালির আরেক সাবেক ফরোয়ার্ড ক্রিস্টিয়ান ভিয়েরি যাঁদের মধ্যে একজন। টুইচে ‘বোবোটিভি’ নামে একটা লাইভও প্রচার করেন নিয়মিত, যেখানে অন্যান্য ফুটবলারদের অতিথি করে নিয়ে আসা হয়। সেদিন ভিয়েরির ‘বোবোটিভি’–তেই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল কাসানোকে। সেখানে এসেই রোনালদোকে একদম ধুয়ে দিয়েছেন রিয়াল সাবেক এই ফরোয়ার্ড।

default-image

গত বছর মেসিকে রোনালদোর চেয়ে ভালো ফুটবলার বলেছিলেন কাসানো। তখন জুভেন্টাসে খেলতেন রোনালদো। ব্যস, আর যায় কোথায়! কাসানোর কথাবার্তা ভালো লাগল না পর্তুগিজ তারকার।। কাসানোকে সরাসরি হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা পাঠালেন তিনি। এরপর কী হলো? শুনে নেওয়া যাক কাসানোর মুখ থেকেই, ‘ক্রিস্টিয়ানো আমাকে হোয়াটসঅ্যাপে লিখল সে ক্যারিয়ারে যা যা জিতেছে তার জন্য আমি যেন ওকে সম্মান করি। ও যতগুলো গোল করেছে, ও ক্যারিয়ারে যেভাবে তাঁর দলগুলোর প্রতিনিধিত্ব করেছে, সেটার জন্য যেন আমি ওকে সম্মান করি।’


কিন্তু রোনালদো বললেই–বা কী! কাসানো যে চলেন নিজের নিয়মে! রোনালদোর কথাকে একটুও পাত্তা দেননি সাবেক এই ফরোয়ার্ড, ‘দেখুন, আমি সত্যি বলতে কখনো ভয় পাই না। আমি গোটা দুনিয়ার মুখোমুখি হতে রাজি আছি। ধর্মযাজক পোপ থেকে শুরু করে বিশ্বের শেষ মানুষটার মুখোমুখি হতে রাজি আছি। তাই আমি আমার মন্তব্য বদলাইনি। আমি ওকে বললাম, “তোমাকে অসম্মান করছি না, তবে বিশ্বে একজনই রোনালদো আছে আর সে হলো রোনালদো ফেনোমেনন (ব্রাজিলের কিংবদন্তি স্ট্রাইকার), আর মেসিও তোমার চেয়ে ভালো। এটার অর্থ এই না যে আমি তোমাকে অসম্মান করছি।” আমি সত্যিটাই বলছিলাম। মেসি আসলেই ওর চেয়ে ভালো।’

কিন্তু কাসানো বুঝেই উঠতে পারেননি তাঁর ফোন নম্বর রোনালদো কী করে পেলেন। পরে জুভেন্টাসের সাবেক গোলকিপার জিয়ানলুইজি বুফনকে জিজ্ঞেস করে উত্তর পেয়ে যান কাসানো, ‘আমি জিজি বুফনকে জিজ্ঞেস করলাম ও কী আমার নম্বর রোনালদোকে দিয়েছে কি না। ও বলল, ও আমার ফোন নম্বরটা জুভেন্টাসের প্রেস অফিসারকে দিয়েছিল, রোনালদো সেখান থেকেই আমার নম্বর জোগাড় করেছে।’
শুধু সম্মান চেয়েই ক্ষান্ত হননি রোনালদো। আরও অনেক বার্তাই পাঠিয়েছিলেন কাসানোকে, ‘ও আমাকে বার্তা পাঠাতেই থাকল। ও লিখল, আমার অনেক টাকা আছে। আমি ক্যারিয়ারে ৭৫০র-ও বেশি গোল করেছি। যেখানে তুমি গোটা ক্যারিয়ারে ১৫০টার মতো গোল করেছ।’


এর পরেই রোনালদোকে আরও কিছু কথা শুনিয়ে দেন কাসানো, ‘আমি ওকে বললাম আমি যা বলেছি সেটা আমার ব্যক্তিগত অভিমত। তোমার মতো খেলোয়াড় এমন কেন করবে? তোমার সবকিছু আছে। তুমি চুপচাপ থাকবে নিজের জীবন আর কাজ নিয়ে। বাইরের মানুষ কে কী বলল সবকিছুতে এত পাত্তা দেবে কেন? তোমার মেসির উদাহরণ অনুসরণ করা উচিৎ। বাইরের মানুষ কে কী বলল না বলল তাতে সে একটুও পাত্তা দেয় না! আমাকে টেক্সটও করে না!’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন