বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গত রাতে উত্তর আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে উইন্ডসর পার্কে গোলশূন্য ড্র করে সুইজারল্যান্ডকে গ্রুপের শীর্ষে উঠিয়ে দিয়েছে তারা। আর নিজেরা পড়েছে প্লে-অফের খড়্গে, যে যন্ত্রণায় গতকালই পড়েছে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। ওদিকে সুইজারল্যান্ড নিজেদের কাজটা ঠিকঠাক করে রেখেছে বুলগেরিয়াকে ৪-০ গোলে হারিয়ে। প্লে-অফ পরীক্ষায় পাস করতে পারলেই কেবল বিশ্বকাপে সুযোগ মিলবে ইতালির।


এত হিসাব–নিকাশের মধ্যে যেতে হতো না, যদি এই জর্জিনিও দুই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দুটি পেনাল্টি মিস না করতেন। সে দুই ম্যাচে ইতালির প্রতিপক্ষ কে ছিল জানেন? এই সুইজারল্যান্ডই! সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচে ড্র করেছিল ইতালি। ওই দুই ম্যাচেই পেনাল্টি মিস করেছেন চেলসির এই মিডফিল্ডার। বলা বাহুল্য, সে দুই ম্যাচে পেনাল্টি মিস না হলে ইতালিই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ত, ২ পয়েন্টের জায়গায় অর্জন করত পুরো ৬ পয়েন্ট, আজ বিশ্বকাপেও ওঠা হয়ে যেত তাদের! জর্জিনিও কপাল চাপড়াবেন না তো কে চাপড়াবেন!

default-image

ম্যাচের শুরু থেকেই গোলের বেশ কিছু সুযোগ সৃষ্টি করেছিল ইতালি। তবে উত্তর আয়ারল্যান্ডের গোলকিপার বেইলি পিকক-ফ্যারেলের কল্যাণে গোল করতে পারেননি ফেদেরিকো কিয়েসা ও দমিনিকো বেরার্দিরা। সব মিলিয়ে উত্তর আইরিশদের গোলপোস্ট বরাবর এক ডজন শট মেরেছে ইতালি, কোনোটাতেই গোল হয়নি।

তবে উত্তর আয়ারল্যান্ডও যে গোলের সুযোগ পায়নি তা নয়; প্রতি–আক্রমণে গোল করার সুযোগ পেয়েছিলেন লিডস ইউনাইটেডের মিডফিল্ডার স্টুয়ার্ট ডালাস ও চার্লটন অ্যাথলেটিকের স্ট্রাইকার কনর ওয়াশিংটন। ড্র করে তাদের কোনো লাভ হয়নি যদিও, গ্রুপের তৃতীয় দল হিসেবেই থাকছে তারা, বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ হচ্ছে না।

default-image

ওদিকে বুলগেরিয়াকে হেসেখেলে হারানোর পেছনে অবদান যথারীতি অধিনায়ক জের্দান শাকিরির। নিজে গোল না পেলেও ২টি গোল করিয়েছেন এই আক্রমণাত্মক মিডফিউল্ডার। গোল পেয়েছেন সালজবুর্গের ফরোয়ার্ড নোয়া ওকাফোর, অগসবুর্গের উইঙ্গার রুবেন ভারগাস, রেঞ্জার্সের স্ট্রাইকার সেড্রিক ইতেন ও আতালান্তার মিডফিল্ডার রেমো ফ্রয়লার।


শুধু ইতালি ও পর্তুগালই নয়, প্লে-অফের ফাঁড়ায় পড়েছে রবার্ট লেভানডফস্কির পোল্যান্ড ও জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচের সুইডেনও। আগামী বছরের মার্চে হবে প্লে-অফের ম্যাচগুলো।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন