বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে প্রিমিয়ার লিগে উঠে আসা স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘকে এবারের মৌসুমে চমক হিসেবে ধরা হচ্ছে। সর্বশেষ লিগের চতুর্থ হওয়া সাইফের বিপক্ষে আজ ২-০ গোলে হারলেও কখনো অসহায় মনে হয়নি দলটিকে। দলের গোলকিপার সারোয়ার জাহান আজ বেশ কয়েকবার দলকে রক্ষা করেছেন। কম যাননি সাইফ গোলকিপার পাপ্পু হোসেনও।

সাত মিনিটে দুই দফায় সাইফকে গোলবঞ্চিত করেছেন সারোয়ার। প্রথম দফায় সানডে উদোহর শট ঠেকান। ফিরতি বলে আসরোর গফুরভের শটও ঠেকিয়ে দিয়েছেন তিনি। ১৬ মিনিটে সাইফের বাধা সাইড পোস্ট। বক্সের ভেতর থেকে রুয়ান্ডার ডিফেন্ডার এমেরি বাইসেঙ্গের ডান পায়ের ভলি পোস্টে লেগে ফিরে আসে।

default-image

৩৪ মিনিটে সাইফের স্ট্রাইকার এমেকা ওগবাগ এমনই গোলের সুযোগ নষ্ট করলেন, নিজেই নিজের মাথা চাপড়াতে পারেন নাইজেরিয়া জাতীয় দলে খেলা এই স্ট্রাইকার। স্বাধীনতার ডিফেন্ডারের ভুলে পাওয়া বল নিয়ে বক্সে ঢোকার পর তাঁর সামনে শুধু গোলকিপার ছিল। প্রায় ১২ গজ দূর থেকে নেওয়া তাঁর শট পোস্টের অনেক বাইরে দিয়ে চলে যায়।

৪২ মিনিটে রহিমের গোলে এগিয়ে যায় সাইফ। জামাল ভূঁইয়ার কর্নারে বল গোলকিপার সারোয়ারের গ্লাভস গলে বেরিয়ে যায়। টোকা দিয়ে জালে জড়িয়ে দেন উইঙ্গার রহিম।
ম্যাচে যেভাবে খেলছিলেন মারাজ, তাঁর গোল পাওয়াটা ছিল সময়ের ব্যাপার। ৭১ মিনিটে ২-০ করেছেন মারাজ। তরুণ এই ফরোয়ার্ডের নিখুঁত ফিনিশিংয়ের প্রশংসা করতেই হয়। গফুরভের রক্ষণচেরা পাস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ঠান্ডা মাথার প্লেসিংয়ে গোলটি করেন মারাজ।

৬ জানুয়ারি ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে নামবে টুর্নামেন্টের বর্তমান রানার্সআপ সাইফ। তাদের প্রতিপক্ষ হবে আগামীকাল অনুষ্ঠেয় আবাহনী লিমিটেড ও শেখ জামাল ধানমন্ডির মধ্যকার জয়ী দল।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন