বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জোড়া গোলের পর জাতীয় দলে খেলার সম্ভাবনা জোরালো হলো কি না—ম্যাচ শেষে এমন প্রশ্নে কিংসলি বলেন, ‘সাফের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে আমাকে কিছু জানানো হয়নি। আমাকে যদি কোচ যোগ্য মনে করেন, তাহলে ডাকবেন। আর যদি তা না মনে করেন, তাহলে আমার চেয়ে সেরাদেরই নেবেন।’

default-image

কিন্তু বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোচ জেমি ডে ডাকলেই কিংসলির খেলা নিশ্চিত না। এর আগে তাঁকে পেতে হবে এএফসি থেকে বাংলাদেশি হিসেবে খেলার ছাড়পত্র। এ ব্যাপারে বাফুফের দিকেই চেয়ে আছেন কিংসলি, ‘আমার কাছে আমার পাসপোর্ট আছে। আমি শুধু এতটুকুই জানি। বাংলাদেশ সরকারের কাছে চিরকৃতজ্ঞ। বাফুফে জানিয়েছে তারা সাফের আগে ছাড়পত্র পাবে। এটা তাদের কাজ। আগের মতো এখনো বলব, আমি পুরোপুরি প্রস্তুত জাতীয় দলে নিজের সেরাটা দেওয়ার জন্য। যখন আমি ডাক পাব, সেরাটাই দেব।’

লিগে এখন পর্যন্ত ৪ ম্যাচ খেলে ৩ গোল। আজ জোড়া গোলের পর তাঁর ফিটনেস নিয়ে হয়তো প্রশ্ন তোলা যায় না। তবে এর আগে কোচ জেমি ডে তাঁর ফিটনেস নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন, সে প্রসঙ্গ মনে করিয়ে দিলে কিংসলির জবাব, ‘আমি আমার ক্লাবের সঙ্গে কাজ করছি। জাতীয় দলের কোচের সঙ্গে কাজ করছি না। ক্লাবের কোচকে জিজ্ঞাসা করুন আমার ফিটনেস ঠিক আছে কি না? আমি যদি ফিট না হতাম, তাহলে লিগে ম্যাচ খেলতে পারতাম না। তবে সব সময় ফিটনেসে উন্নতি করার জায়গা আছে। জাতীয় দলের কোচ যদি মনে করেন আমার ফিটনেসে উন্নতির সুযোগ আছে, তাহলে আমি সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করব।’

সাইফের অধিনায়ক হিসেবে আজ জামাল ভূঁইয়া খুব কাছ থেকে দেখেছেন কিংসলির পারফরম্যান্স। কিংসলিকে পেলে ভালো হবে বলেই মনে করেন জাতীয় দলের অধিনায়ক, ‘বল ধরে রাখতে পারে এমন খেলোয়াড় দরকার আছে। একজন বক্স টু বক্স স্ট্রাইকার দরকার আমাদের। একজন নাম্বার নাইনও দরকার। কিংসলিকে পাওয়া গেলে আমাদের জন্যই ভালো হবে।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন