বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

করোনায় বার্সার এমন অবস্থা যে, দুই গোলকিপারসহ মূল দলের শুধু ১১ জন খেলোয়াড়কেই এই ম্যাচে পেয়েছেন বার্সা কোচ জাভি। যুবদল 'বার্সা বি' থেকে তাই ৮ জন খেলোয়াড়কে নিয়ে এসেছেন।

আক্রমণে আনসু ফাতি, মেম্ফিস ডিপাই ও মার্টিন ব্রাথওয়েইট চোটের কারণে বাইরে। করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ফিলিপ কুতিনিও, উসমান দেম্বেলে ও আবদে এজ্জালজুলি। ম্যানচেস্টার সিটি থেকে যোগ দেওয়া ফেরান তোরেসের এখনো বার্সেলোনায় নিবন্ধন সম্পন্ন হয়নি। ডি ইয়ং ছাড়া খেলানোর মতো স্ট্রাইকারই ছিল না বার্সার!

default-image

দুই পাশে দুই তরুণ ফেরান জাগলা ও ইলিয়াস আখোমাশকে নিয়ে আক্রমণের নেতৃত্ব দিলেন সেই ডি ইয়ংই। বার্সাকে জেতানো গোলটি করেছেন ৪৪ মিনিটে, ডানদিক থেকে অস্কার মিঙ্গেসার ক্রসে হেড করে। তার আগেও দুবার গোল প্রায় পেয়েই গিয়েছিলেন এই ডাচ স্ট্রাইকার। একবার তাঁর শট ফিরেছে পোস্টে লেগে, আরেকবার চোখধাঁধানো ওভারহেড ভলি জালে ঢোকার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায় বার!

এমন পারফরম্যান্সের পর এখন তাঁকে অন্য ক্লাবে দিয়ে দেওয়ার আগে দ্বিতীয়বার ভাবছেন বার্সা কোচ জাভি, 'ওর ক্লাব ছাড়া নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। তবে সেটা সত্ত্বেও ও কঠোর পরিশ্রম করছে, ক্লাবের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিচ্ছে। ওর নিবেদন দেখে আমি সন্তুষ্ট। অবশ্যই ওর কাবে থেকে যাওয়ার সম্ভাবনা নিয়েও আমি ভাবছি। আজ দলের জন্য অনেক বড় অবদান রেখেছে ও।'

বিরতিতে এগিয়ে থাকা বার্সা দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য কিছুটা খেই হারিয়েছে। নিজেদের মাঠে লিগে এর আগের ৯ ম্যাচে মাত্র একবার হারের স্বাদ পাওয়া মায়োর্কা আজ দ্বিতীয়ার্ধে দুটি সুযোগ পেয়েছিল সমতায় ফেরার। ফের নিনিওর হেড বার উঁচিয়ে যায়, এরপর একেবারে শেষের দিকে হাউমে কস্তার শট দারুণ দক্ষতায় ফিরিয়ে বার্সাকে বাঁচান গোলকিপার মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগেন।

'আমাদের এই জয়ের ৭০ ভাগের জন্য আমরা টের স্টেগেনের কাছেই ঋণী' - বলছিলেন বার্সা ডিফেন্ডার এরিক গার্সিয়া।

বাকি ৩০ ভাগ ঋণ? নিশ্চিতভাবেই লুক ডি ইয়ংয়ের নামে!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন