বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পোল্যান্ডের সাবেক আন্তর্জাতিক কারাতে তারকা আনা লেভানডফস্কি তাঁর জীবনসঙ্গীর পুষ্টিবিদ এবং খাওয়াদাওয়ার দিকটি দেখাশোনা করেন। বায়ার্ন তারকাকে নিয়ে গর্বিত আনা, ‘খুব গর্ব লাগছে তাঁকে নিয়ে। মানুষ, অ্যাথলেট, সঙ্গী, স্বামী ও বন্ধু হিসেবে সে অসাধারণ।’

১৯৭১-৭২ মৌসুমে বুন্দেসলিগায় এক মৌসুমে ৪০ গোলের রেকর্ড গড়েছিলেন জার্মানির কিংবদন্তি স্ট্রাইকার গার্ড মুলার। গত মৌসুমে তাঁর সেই রেকর্ড ভাঙেন লেভানডফস্কি। ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগে প্রতি গোলে ২ পয়েন্ট হিসেবে ধরা হয়, সে হিসাবে ৪১ গোল করে সর্বোচ্চ ৮২ পয়েন্ট পেয়ে পুরস্কারটি জেতেন বায়ার্ন সমর্থকদের প্রিয় ‘লেভা’।

default-image

নিচু সারির লিগে গোলপ্রতি ১ পয়েন্ট এবং মাঝারি সারির লিগে প্রতি গোলে দেড় পয়েন্ট ধরা হয়। ৩০ গোল নিয়ে দুইয়ে মেসি এবং ২৯ গোল নিয়ে তৃতীয় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ক্যারিয়ারে ছয়বার ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জিতেছেন মেসি। রোনালদো জিতেছেন চারবার।

চলতি মৌসুমে ৭ ম্যাচে এরই মধ্যে ১১ গোল করেছেন লেভানডফস্কি। দলবদলের মৌসুমে গুজব উঠেছিল বায়ার্ন ছাড়তে পারেন তিনি।

সে সম্ভাবনা নাকচ করে লেভা বলেন, ‘অন্য লিগে নিজেকে আমার প্রমাণ করতে হবে না। চ্যাম্পিয়নস লিগে অন্য লিগের সেরাদের সঙ্গে আমি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারি। বায়ার্ন মিউনিখেই শতভাগ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ আমি। এই দল ছাড়া আর কিছুই ভাবছি না।’

বুন্দেসলিগার ইতিহাসে দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জিতলেন লেভানডফস্কি। তাঁর আগে ১৯৭০ ও ১৯৭২ সালে পুরস্কারটি জিতেছিলেন গার্ড মুলার।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন