বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

ইংলিশ ফুটবলের পরিচিত মুখ ব্রুস। ১৭ অক্টোবর টটেনহামের বিপক্ষে ঘরের মাঠে খেলবে নিউক্যাসল। সে ম্যাচে একটি মাইলফলক ছোঁয়ার কথা তাঁর। সবকিছু ঠিক থাকলে সেদিন কোচ হিসেবে ১০০০তম ম্যাচে ডাগআউটে দাঁড়াবেন ব্রুস। ২০১৯ সালের জুলাইয়ে নিউক্যাসলের দায়িত্ব নেওয়ার পর ৯৬ ম্যাচের দায়িত্বে ছিলেন। ফলে এই ক্লাবের হয়েও ১০০ ম্যাচের মাইলফলক তাঁর সামনে। কিন্তু সৌদি আরবের পাবলিক ইনভেস্ট ফান্ড (পিআইএফ) নিউক্যাসল কিনে নেওয়ার পর এখন চাকরি হারানোর ভয়ে আছেন ব্রুস।

আন্তর্জাতিক ফুটবলের কারণে এখন প্রিমিয়ার লিগে বিরতি চলছে। বিরতির আগের সর্বশেষ ম্যাচে উলভারহ্যাম্পটনের কাছে ২-১ ব্যবধানে হেরে গেছে নিউক্যাসল। নতুন মালিকের তাই ব্রুসকে আর কোচ হিসেবে পছন্দ না–ও হতে পারে। দ্য টেলিগ্রাফকে বলেছেন, ‘আমি তো চালিয়ে যেতে চাই, নতুন মালিকদের দেখাতে চাই কী করতে পারি। কিন্তু আপনাকে বাস্তববাদী হতে হবে। তারা শুরুটা নতুন কোচ দিয়ে করতে চাইতেও পারে।’

এক হাজার ম্যাচের দ্বারপ্রান্তে, অভিজ্ঞতা তো কম হলো না। ৬০ বছর বয়সী এই কোচ তাই জানেন, মালিকানার পালাবদলে কী হয়, ‘নতুন মালিক সাধারণত নতুন কোচ চান। এটা বোঝার মতো সময় আমি কাটিয়ে ফেলেছি। সিদ্ধান্ত নেওয়া আমার হাতে নেই। আমি এটা মেনে নিয়েছি এবং যা–ই ঘটুক মেনে নেব। যখন সময় হবে তাদের সঙ্গে কথা হবে আমার।’

সে কথা যদি আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই হয়ে যায়, সে ক্ষেত্রে হয়তো ১৭ অক্টোবর মাইলফলক ছোঁয়া হবে না তাঁর।

default-image

এ নিয়েও কোনো আফসোস থাকবে না ব্রুসের, ‘স্পার্সের বিপক্ষে ১০০০তম ম্যাচ না হলে, বলতেও পারেন এটা শুধু আমার সঙ্গেই ঘটে। কিন্তু আমার কাছে এটা নিষ্ঠুর মনে হবে না। এটাই ফুটবল। যা–ই হোক না কেন, আমার রাগ বা এমন কিছু হবে না। চাকরি হারালে অবশ্যই মন খারাপ হবে। যেদিন থেকে আমি কোচ বনেছি, সেদিন থেকে এ চাকরি করতে চেয়েছি। যত কঠিন সময় পার করি না কেন, নিউক্যাসল ইউনাইটেডের কোচ হতে পেরে আমি অনেক গর্বিত।’

ক্লাবের প্রতি ভালোবাসা আছে বলেই নতুন মালিকানা ও নতুন সম্ভাব্য কোচ নিয়ে আশাবাদী ব্রুস, ‘আমার সঙ্গে যা–ই হোক না কেন, সেটা অপ্রাসঙ্গিক। এখন এই ক্লাব ও এর ভবিষ্যৎই মূল আলোচ্য। আমি আসলেই আশা করি, এটা রোমাঞ্চকর এক যুগের সূচনা করে দেবে। সৌদি আরবের মালিকদের কত টাকা, সেটা শোনার পর উত্তেজিত হতে বাধ্য আপনি।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন