বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

তবে কেইনের ফর্ম নিয়ে এই ইতালিয়ান কোচ যে এর মধ্যেই কাজ শুরু করে দিয়েছেন, সেটা বোঝা যাচ্ছে বেশ। আর তার সুফল আপাতত পাচ্ছে কেইনের জাতীয় দল। এক ম্যাচ আগেই আলবেনিয়াকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছিল ইংল্যান্ড। গত রাতে নিজেদের সর্বশেষ ম্যাচে সান মারিনোর বিপক্ষে ইংল্যান্ড গোল করল স্রেফ এর দ্বিগুণ।

হ্যাঁ, দশ-দশটা গোল করেছে ইংল্যান্ড। নিশ্চিত করেছে কাতার বিশ্বকাপে নিজেদের অংশগ্রহণ। আলবেনিয়ার বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করা কেইন এই ম্যাচে গোল করেছেন আরও একটা বেশি। কেইনের এই ধুন্ধুমার ফর্ম দেখে স্পার্সভক্তদের মুখের হাসি চওড়া হবে নিশ্চিত!

default-image

কেইন ছাড়াও এই ম্যাচে গোল পেয়েছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সেন্টারব্যাক হ্যারি ম্যাগুয়ার, আর্সেনালের মিডফিল্ডার এমিল স্মিথ-রো ও বুকায়ো সাকা, অ্যাস্টন ভিলার সেন্টারব্যাক টায়রন মিংস, রোমার স্ট্রাইকার ট্যামি আব্রাহাম। বাকি গোলটা ফিলিপ্পো ফাব্রির আত্মঘাতী। অথচ এই ম্যাচে ১ পয়েন্ট হলেই বিশ্বকাপ নিশ্চিত হয়ে যেত ইংল্যান্ডের। ম্যাচের আগে এ কথা কেউ কেইনদের বলেননি হয়তো!


এর আগে ৫৭ বছর আগে ১৯৬৪ সালে এক ম্যাচে ১০ গোল দিয়েছিল ইংল্যান্ড। সে ম্যাচের দুর্ভাগা দলটা ছিল যুক্তরাষ্ট্র। সেদিন কেইনের ভূমিকা নিয়েছিলেন লিভারপুলের সাবেক স্ট্রাইকার রজার হান্ট, এক হালি গোল করেছিলেন তিনি। ৪ গোল নিয়ে ইংলিশদের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় ৪৮ গোল নিয়ে তৃতীয় স্থানে চলে এলেন হ্যারি কেইন।

লেস্টার সিটি ও বার্সেলোনার সাবেক স্ট্রাইকার গ্যারি লিনেকারের গোলও কেইনের সমান। ৫ গোল বেশি নিয়ে সবার ওপরে আছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও এভারটনের সাবেক স্ট্রাইকার ওয়েইন রুনি।


গ্রুপ এফ থেকে ডেনমার্কের বিশ্বকাপে যাওয়া আগেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল। ওদিকে স্কটল্যান্ডও যে প্লে-অফ খেলবে এই গ্রুপ থেকে, সেটাও নিশ্চিত ছিল। গ্রুপের সবচেয়ে শক্তিশালী দুই দলের মধ্যকার ম্যাচটা তাই এক অর্থে অর্থহীন হয়ে গিয়েছিল। অগুরুত্বপূর্ণ হয়ে যাওয়া ম্যাচটায় অবশ্য শেষ হাসি হেসেছে স্কটল্যান্ড। চে অ্যাডামস আর জন সুতারের গোলে দুর্বল দল নামানো ডেনমার্ককে ২-০ গোলে হারিয়েছে তারা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন