বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

রোনালদো নিজে গোল করেননি, উল্টো ফাউল করে একটা হলুদ কার্ড দেখেছেন। তবে ৫৭ মিনিটে স্কটিশ মিডফিল্ডার রায়ান ফ্রেজারকে যেভাবে ফাউল করেছেন, তাতে অনায়াসে তাঁকে লাল কার্ড দেখানো যেত। গোল করা তো দূর, একটা গোলের সুযোগও সৃষ্টি করতে পারেননি। যে দলের বিপক্ষে আগের ম্যাচেই জোড়া গোল করেছিলেন, সে দলের বিপক্ষে ১৭ দিনের বিরতির পর এমন পারফরম্যান্স অবশ্যই প্রত্যাশিত ছিল না!

default-image

মাত্র সাত মিনিটেই নিউক্যাসলকে এগিয়ে দেন ফরাসি উইঙ্গার সাঁ মাক্সমাঁ। ইংলিশ মিডফিল্ডার শন লংস্টাফের কাছ থেকে বল নিয়ে বক্সের বাইরে থেকে পায়ের জাদুতে ভেতরে এসে দিওগো দালোত আর হ্যারি ম্যাগুয়ারকে বোকা বানিয়ে ডান পায়ের শটে গোল করেন সাঁ মাক্সমাঁ। গোল করার আরেকটা দুর্দান্ত সুযোগ পেয়েছিলেন এই উইঙ্গার। কিন্তু ইউনাইটেডের স্প্যানিশ গোলকিপার দাভিদ দা হেয়ার কৃতিত্বে বিপদ বাড়েনি। এর আগে ইংলিশ মিডফিল্ডার জনজো শেলভির একটা দূরপাল্লার শটও দুর্দান্তভাবে ঠেকিয়ে ইউনাইটেডকে ম্যাচে রাখেন দা হেয়া।

default-image

দুই স্ট্রাইকার রোনালদো-গ্রিনউডের নিষ্প্রভতা দেখে মাঠে নামানো হয় এদিনসন কাভানিকে, যে কাভানি রোনালদো, গ্রিনউড, রাশফোর্ডদের কারণে মূল একাদশে সুযোগ না পেতে পেতে বিরক্ত হয়ে ক্লাব ছাড়ার চেষ্টা করছেন। বার্সেলোনা থেকে শুরু করে বোকা জুনিয়র্স, গ্রেমিও, করিন্থিয়ানস, জুভেন্টাস—সবাই চাইছে পিএসজির সাবেক এই স্ট্রাইকারকে।

তারা যে ভুল কাউকে চাইছে না, সেটার প্রমাণ চলে আসে ৭১ মিনিটে। ডান প্রান্ত থেকে আসা বলে পা ঠেকিয়ে ইউনাইটেডকে সমতায় ফেরান কাভানি।

ম্যাচের শেষ দিকে আরও একবার ত্রাতা হিসেবে আবির্ভূত হন দা হেয়া। ইংলিশ উইঙ্গার জ্যাকব মারফির শট পোস্টে লাগলে বল চলে যায় প্যারাগুয়ের মিডফিল্ডার মিগেল আলমিরনের পায়ে। সেখান থেকে তাঁর দূরপাল্লার শট অসাধারণভাবে আটকে দিয়ে ইউনাইটেডের ১ পয়েন্ট পাওয়া নিশ্চিত করেন দা হেয়া।


১৭ ম্যাচে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার ৭ নম্বরে আছেন রোনালদোরা। দুই দিন পর মাঠে নামবেন বার্নলির বিপক্ষে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন