বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

২০০৩ সালের এপ্রিলে লা লিগার ম্যাচে দেপোর্তিভো লা করুনিয়ার বিপক্ষে ৪-২ গোলের হারার পর চ্যাম্পিয়নস লিগেও ২-১ গোলে হেরেছিল বার্সেলোনা। অর্থাৎ গত ১৯ বছরে যে রেকর্ডটা হয়নি, সেটাই হয়ে গিয়েছে গত রাতে। তবে শক্তির বিচারে সে সময়ের দেপোর্তিভো অবশ্যই এখনকার কাদিজের চেয়ে ঢের এগিয়ে। আর জুভেন্টাসের মতো ঐতিহ্যবাহী দল তো অবশ্যই আইনট্রাখটের চেয়ে বরাবরই শক্তিশালী। দলে মোটামুটি নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, ১৯ বছর আগের ওই গ্লানির চেয়ে এই দুই হার বার্সেলোনাকে কষ্ট দিচ্ছে বেশি। কয়েক মাস আগেই বার্সেলোনার কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেওয়া দলটার ঘরের ছেলে জাভি আর যাই হোক, এই রেকর্ডে অন্তত নাম লেখাতে চাননি!

দলের মূল দুই সেন্টারব্যাক জেরার্দ পিকে ও রোনালদ আরাউহো খেলেননি এই ম্যাচে। মাঠে নামানো হয়েছিল এরিক গার্সিয়া আর ক্লেমঁ লংলেকে। গত দুই ম্যাচে যাদের ‘কল্যাণে’ তিন পেনাল্টি হজম করতে হয়েছিল বার্সেলোনাকে। গার্সিয়া-লংলের একাদশে থাকার কারণেই কি না, বার্সেলোনার জন্য রাতটা বিশেষ সুবিধার হবে না, এমনটাই মনে হচ্ছিল। নব্বই মিনিট শেষে সমর্থকদের ওই আশঙ্কাই সত্যি হয়েছে। ৪৮ মিনিটে সাবেক আর্সেনাল স্ট্রাইকার লুকাস পেরেজের গোলটাই যথেষ্ট ছিল বার্সেলোনার হাত থেকে তিন পয়েন্ট ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য।

আগামী মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে জায়গা করে নেওয়ার জন্য হাতে থাকা প্রত্যেকটা ম্যাচেই ইতিবাচক ফলাফল আনতে হবে। সে কারণেই কি না, বাকি থাকা প্রত্যেকটা ম্যাচকে বার্সেলোনার কোচ জাভি ফাইনাল হিসেবেই মনে করছেন। কাদিজের বিপক্ষে ম্যাচটাও তাই বার্সেলোনার জন্য এক রকম ফাইনালই ছিল। সে ফাইনাল ম্যাচে দলের হার পোড়াচ্ছে আল সাদের সাবেক এই কোচকে, ‘আমরা একটা ফাইনাল হেরেছি। তবে আমরা আমাদের হাতে আরও সাতটা ম্যাচ আছে। আগামী মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে আমাদের জায়গা করে নিতেই হবে।’

হারের পেছনে নিজেদের ব্যর্থতাকেই বড় করে দেখছেন জাভি, ‘কাদিজ রক্ষণাত্মক দিক দিয়ে বেশ দুর্দান্ত এক ম্যাচ খেলেছে। তিন পয়েন্ট পাওয়ার জন্য আমরা যথেষ্ট গোলের সুযোগ সৃষ্টি করেছিলাম কিন্তু শেষমেশ গোল করতে পারিনি। আমাদের কি ভুল হচ্ছে, সেটা বের করতে হবে। আত্মসমালোচনা করতে হবে। আমাদের ওপর থেকে যত দ্রুত সম্ভব এই নেতিবাচক প্রভাবটা সরাতে হবে। প্রত্যেওটা ম্যাচই এখন ফাইনাল। আর এই ম্যাচটা আমরা ফাইনালের মত খেলিনি। জেতার জন্য আমাদের আরও বেশি চেষ্টা করতে হবে।’

সেটা করতে হবে। না চেষ্টা করলে যে এ বছরের মতো আগামী বছরের চ্যাম্পিয়নস লিগেও জায়গা পাওয়া হবে না বার্সেলোনার!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন