ভারতে আসার কথা ভাবছে জার্মানির ক্লাব লাইপজিগ
ভারতে আসার কথা ভাবছে জার্মানির ক্লাব লাইপজিগছবি: লাইপজিগের টুইটার

একে একে ভারতের ক্লাবগুলোর সঙ্গে জুড়ে যাচ্ছে ইউরোপের অনেক ক্লাব।আতলেতিকো মাদ্রিদের সঙ্গে কলকাতার জুটি শেষ হয়ে গেছে আগেই, তবে ভারতে একের পর এক ইউরোপের ক্লাবের পা পড়ছেই!

ইনসাইড স্পোর্ট ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, এই মুহূর্তে ভারতের শীর্ষ লিগ আইএসএলের (ইন্ডিয়ান সুপার লিগ) চারটি ক্লাবের সঙ্গে চুক্তি আছে ইউরোপের ক্লাবগুলোর।

গত বছর বেঙ্গালুরুর সঙ্গে জুটি বেঁধেছিল স্কটল্যান্ডের রেঞ্জার্স—যে ক্লাবের কোচ এখন লিভারপুলের কিংবদন্তি অধিনায়ক স্টিভেন জেরার্ড। এরপর ম্যানচেস্টার সিটি জুটি বাঁধল মুম্বাই সিটির সঙ্গে।

এই বছর জার্মানির বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের সঙ্গে দুই বছরের চুক্তি হলো হায়দরাবাদ এফসির। আর পরশু আরেক জার্মান ক্লাব আর বি লাইপজিগ তিন বছরের চুক্তি করেছে এফসি গোয়ার সঙ্গে।

বিজ্ঞাপন

চুক্তির পরপরই ভারতের ফুটবলপ্রেমীদের আরেকটি স্বপ্ন দেখিয়েছেন লাইপজিগের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর ক্রিস্টোফার ভিভেল। আগামী বছরে লাইপজিগের ভারতে খেলতে আসার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না তিনি!

ক্লাব মৌসুম শুরুর আগে ইউরোপের ক্লাবগুলোর এশিয়াতে প্রাক্‌-মৌসুম প্রস্তুতির জন্য আসা নতুন কিছু নয়। থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর কিংবা মালয়েশিয়াতে ইউরোপের বড় বড় সব ক্লাবই খেলে গেছে। কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ায় আসার ব্যাপারে সাধারণত ইউরোপের বড় ক্লাবগুলোর তেমন আগ্রহ থাকে না। আগামী বছরে সেটি বদলাবে? হয়তো!

লাইপজিগের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর ভিভেল সম্ভাবনা জিইয়ে রাখলেন, ‘আশা করি আগামী গ্রীষ্মে এমনটা সম্ভব হবে, তবে সবকিছু নির্ভর করছে এই মহামারি তখন কোন অবস্থায় দাঁড়ায় সেটির ওপর।’

সাধারণত এসব প্রশ্নে কখনোই উত্তরে ‘না’ বলেন না ইউরোপের ক্লাবের কর্তারা। ‘না’ বলাটা শোভনীয় দেখায় না।

কিছুদিন আগে লা লিগার উপমহাদেশীয় কর্তাদের সঙ্গে বাংলাদেশি সংবাদমাধ্যমের আলাপেও রিয়াল মাদ্রিদ বা বার্সেলোনার বাংলাদেশে কখনো আসার সম্ভাবনার প্রশ্ন উঠেছিল।

লা লিগার উপমহাদেশীয় পরিচালক হোসে আন্তোনিও চাচাসাও তখন কোনো সম্ভাবনাই নাকচ করে দেননি। যদিও তিনি এখানে বড় ক্লাবগুলোর আসা-থাকা-অনুশীলনের সুবিধা, তাদের প্রাক্‌-মৌসুম প্রস্তুতির পরিকল্পনার সঙ্গে উপমহাদেশে তাদের আসার পরিকল্পনা মেলে কি না...সেসব প্রসঙ্গের কথাও বলেছিলেন।

বিজ্ঞাপন

তবে লাইপজিগের সঙ্গে এফসি গোয়ার চুক্তি হয়েছে বলেই সম্ভাবনাটা এখানে বেশি।গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে খেলা লাইপজিগ আসুক বা না আসুক, তাদের সঙ্গে চুক্তিটা গোয়ার জন্য লাভজনকই হতে যাচ্ছে।

বিশেষ করে তরুণ ভারতীয় খেলোয়াড়দের লাইপজিগে গিয়ে কিংবা লাইপজিগ থেকে ভারতে আসা কোচদের অধীনে অনুশীলনের সুযোগ বাড়বে।

মন্তব্য পড়ুন 0