বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বুঝিয়েছেন, ২৭ বছর ধরে জুভেন্টাসকে যে শিরোপা রোনালদো, তেভেজ, পিরলো, ভিদাল, বুফন কিংবা কিয়েল্লিনিরা এনে দিতে পারেননি, সে শিরোপা জেতার জন্য তাঁর ওপর ভরসা করাই যায়। কিন্তু ভ্লাহোভিচ নিজের কাজটা ঠিকঠাক করলে কী হবে? গোটা দলকেও তো ভালো খেলতে হবে!


শেষ পর্যন্ত সেটি হয়নি। ম্যাচের ৩২ সেকেন্ডে ভ্লাহোভিচের গোলে জুভেন্টাস এগিয়ে গেলেও, পরে স্প্যানিশ মিডফিল্ডার দানি পারেহোর গোলে সমতা ফেরায় ভিয়ারিয়াল। ফলে ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় জুভদের। বলে রাখা ভালো, ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন এই সার্বিয়ান স্ট্রাইকার। প্রথম ম্যাচেই বাজিমাত!

এই গোল আরও বেশ কিছু রেকর্ড এনে দিয়েছে ভ্লাহোভিচকে। মূল একাদশের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগে নিজের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে এত দ্রুততম সময়ে আর কেউই গোল করেননি। ভ্লাহোভিচই এই শতকে জন্ম নেওয়া প্রথম খেলোয়াড়, যিনি চ্যাম্পিয়নস লিগের নকআউট রাউন্ডে জুভেন্টাসের হয়ে গোল করলেন।

জুভেন্টাসের হয়ে চ্যাম্পিয়ন লিগে অভিষেকে গোল করতে পারা দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় (২২ বছর ২৫ দিন) ভ্লাহোভিচ। শীর্ষে কে? কিংবদন্তি স্ট্রাইকার আলেসসান্দ্রো দেল পিয়েরো। ২০ বছর ৩০৮ দিয়ে জুভেন্টাসের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ অভিষেকে নিজের প্রথম গোল পেয়েছিলেন এই স্ট্রাইকার।

তবে দল যেহেতু জেতেনি, রেকর্ডগুলো আপাতত একটু তিতকুটেই লাগবে ভ্লাহোভিচের কাছে। তা বোঝা গেছে তাঁর কথায়ও, ‘অভিষেকে গোল করতে পারা বিরাট একটা ব্যাপার। আমার জন্য বিষয়টা বেশ আবেগের। তবে যেহেতু আমরা ম্যাচ জিততে পারিনি, ১০০% সন্তুষ্ট হতে পারছি না। ব্যক্তিগতভাবে আমি এর মধ্যেই ভুলে গিয়েছি ম্যাচটা, পরের ম্যাচের জন্য চিন্তা করা শুরু করে দিয়েছি।’


ওদিকে আরেক ম্যাচে কাই হাভার্টজ আর ক্রিস্টিয়ান পুলিসিকের গোলে লিলকে ২-০ গোলে হারিয়েছে চেলসি। আগামী রোববার লিভারপুলের বিপক্ষে লিগ কাপ ফাইনালে খেলতে নামবে দলটি, তার আগে প্রস্তুতিটা বেশ ভালোই হলো ব্লুজদের।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন