বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গত মঙ্গলবার রাতে লিভারপুলের বিপক্ষে আরও প্রকট হয়ে বেরিয়ে পড়েছে ইউনাইটেডের কঙ্কাল। অ্যানফিল্ডে ইউনাইটেডকে নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলা করে লিভারপুল জিতেছে ৪-০ গোলে। ছয় মাস আগে ওল্ড ট্রাফোর্ডে ৫-০ গোলের পরাজয় যোগ করলে এবারের লিগে লিভারপুলের বিপক্ষে ইউনাইটেডের স্কোরলাইন ৯-০!

বর্তমানে স্কাই স্পোর্টসের হয়ে ধারাভাষ্য করা গ্যারি নেভিল ধারাভাষ্য দিয়েছেন লিভারপুলের বিপক্ষে ম্যাচেও। যে ম্যাচ দেখাটা তাঁকে কেমন যন্ত্রণা উপহার দিয়েছে, তা বোঝা যাচ্ছে এই প্রতিক্রিয়াতেই, ‘লিভারপুলের চেয়ে প্রতিটি বিভাগেই মিলিয়ন মাইল পেছনে ছিল এই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। মাঠে ও মাঠের বাইরে তাদের একই অবস্থা। এটা ছিল খুবই মন খারাপের একটা সন্ধ্যা।’

default-image

যদিও যা হয়েছে, তাতে গ্যারি নেভিল খুব একটা বিস্মিত নন, ‘এমন হবে বলেই ভেবেছিলাম। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের একজন সমর্থকও এখানে কোনো আশা নিয়ে আসেনি। এই দলের দেওয়ার কিছুই নেই।’ এসব বলার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে দিয়ে বলেছেন, ’৪২ বছরেও এত বাজে ইউনাইটেড দল আমি দেখিনি।’

গতবারের লিগে দ্বিতীয় হওয়া দলটির এই অধঃপতন একটু বিস্মিতও করছে নেভিলকে, ‘কিছু ভালো ও প্রতিভাবান খেলোয়াড় এই দলে আছে। লিগে দ্বিতীয় হয়ে গত মৌসুমের শেষটা একটু আশা জাগিয়েছিল। এরপর তারা ইউরোপা লিগের ফাইনালে হেরেছে। সেখান থেকে কীভাবে আজকের এই অবস্থা, এর ব্যাখ্যা আমার কাছে নেই। আমার ৪২ বছরের জীবনে ইউনাইটেডকে এতটা বাজে অবস্থায় কখনো দেখিনি আমি।’

default-image

ইউনাইটেডের অবস্থা এমনই খারাপ যে ৮৪ মিনিটে বদলি হিসেবে নামা তিউনিসিয়ান হানিবল মেজবিরিই যা একটু প্রশংসা পেয়েছেন গ্যারি নেভিলের। এর আগে সিনিয়র দলের হয়ে একটা ম্যাচই খেলেছেন হানিবল। তাঁর বলের দখল হারিয়ে ফেলা থেকেই লিভারপুল চতুর্থ গোলটি করেছে। কড়া সব ট্যাকলের জন্য একটা হলুদ কার্ডও দেখতে হয়েছে তাঁকে। তারপরও ১৯ বছর বয়সী এই তরুণের মধ্যেই যা একটু লড়াইয়ের আগুন দেখেছেন নেভিল।

হানিবলকে নিয়ে নেভিল বলেছেন, ‘আমি ওকে নিয়ে গর্বিত, এ কথা বলে ধারাভাষ্যের পেশাদারত্বের জায়গায় ভুল করেছি। কারণ, ও ইচ্ছেমতো পা চালিয়েছে। তবে অন্তত একটা লড়াই তো দেখেছি ওর মধ্যে। অ্যানফিল্ডে লিভারপুল তাকে ও তার টিমমেটদের নিয়ে ছেলেখেলা করছে, এটা ও পছন্দ করেনি। আমি বলছি না ও লিভারপুলের খেলোয়াড়দের লাথি মেরে দারুণ কিছু করেছে। কারণ, কেউ আহত হতে পারত। তবে ম্যান ইউনাইটেড সমর্থক এটিতে অন্তত কিছুটা হলেও লড়াই দেখেছে। বাকিদের কথা আর কী বলব! তাদের কেউ কেউ হয়তো ভালো ছেলে, ভালো পেশাদার, অনেকের ভালো ক্যারিয়ার, প্রতিভাবানও কিন্তু ওরা সব বিধ্বস্ত। এই মৌসুমে ওদের আর দেওয়ার কিছু নেই।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন