২২ জুন, ১৯৮৬। আজটেকা স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ডকে ২–১ গোলে হারায় আর্জেন্টিনা। এই ম্যাচে দুটি জার্সি ব্যবহার করেন ম্যারাডোনা। দ্বিতীয়ার্ধে পরা জার্সিতে করেন সেই ঐতিহাসিক দুটি গোল। শেষ বাঁশি বাজার পর টানেল দিয়ে ড্রেসিংরুমে ফিরছিল আর্জেন্টিনা দল। তখন ইংল্যান্ড দলের মিডফিল্ডার স্টিভ হজ ম্যারাডোনার কাছে জার্সিটি চান। অর্থাৎ বিরতির পর যে জার্সিটি পরে ওই দুটি গোল করেছিলেন ম্যারাডোনা, সে জার্সিটাই চেয়েছিলেন স্টিভ হজ।

২০১০ সালে প্রকাশিত নিজের আত্মজীবনীতে এ নিয়ে জানিয়েছেন হজ, ‘ভাবলাম, আর তো এখানে আসা হবে না। একটা জার্সি সংগ্রহ করলে কেমন হয়! ম্যারাডোনার সঙ্গে হাত মেলাই। এরপর ড্রেসিংরুমে ফেরার পথে দেখি ম্যারাডোনা হাঁটছেন দুজনের সঙ্গে। তাঁর চোখে তাকিয়ে জার্সিটা দেখিয়ে ইশারা করলাম “অদল–বদলের সুযোগ আছে?” ধন্যবাদের সঙ্গে তিনি জার্সিটি অদল–বদল করেন।’

এমনই আবেদন সেই জার্সির যে নিজের আত্মজীবনীর নামই স্টিভ হজ রেখেছেন ‘দ্য ম্যান উইথ দ্য ম্যারাডোনাস শার্ট!’ সে বইয়ে স্টিভ হজ আরও জানান, ‘ইংল্যান্ডে ফিরে নিজের ঘরে জার্সিটি ২০০২ সাল পর্যন্ত রেখে দিই। তখন টিভিতে দেখলাম, ১৯৭০ বিশ্বকাপে পরা পেলের জার্সি নিলামে দেড় লাখ পাউন্ডে বিক্রি হয়েছে। ব্রাজিল–চেকোস্লোভাকিয়া ম্যাচে এক স্লোভাক খেলোয়াড় জার্সিটি পেয়েছিলেন। তখনই বুঝে যাই, ম্যারাডোনার ১৯৮৬ বিশ্বকাপের জার্সিও এমন আলোচনায় উঠে আসতে পারে।’

default-image

ইংল্যান্ডের হয়ে ২৪ ম্যাচ খেলা সাবেক মিডফিল্ডার হজ লিডস ইউনাইটেড, টটেনহাম হটস্পার ও নটিংহাম ফরেস্টে খেলেছেন। ম্যারাডোনার জার্সিকে ভালো অবস্থায় রাখতে ২০০৩ সালে ম্যানচেস্টারে জাতীয় ফুটবল জাদুঘরে সংরক্ষণের জন্য রাখেন। তখন জার্সিটি বিক্রি করে দেওয়ার প্রস্তাবও পেয়েছিলেন ৫৯ বছর বয়সী হজ। এখন তিনি নিলামে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর সবাই ভাবছেন, দামটা ৭০ লাখ ডলার টপকে যেতে পারে। ‘আমি জার্সিটি কখনো ধুইনি, এখনো তাঁর ঘামের গন্ধ ও ডিএনএ পাওয়া যাবে’—বলেন হজ।

২০২০ সালের নভেম্বরে প্রয়াত হওয়া ম্যারাডোনা ছিয়াশি বিশ্বকাপে সে দিন হজের জার্সিটি নিলেও সেটি তিনি রেখে দেননি। আর্জেন্টাইন সতীর্থ অস্কার গ্যারের সঙ্গে অদলবদল করেন। গ্যারি লিনেকারের সঙ্গে জার্সি অদলবদল করেছিলেন গ্যারে। লিনেকার ১০ নম্বর জার্সি পরে খেলতেন, এদিকে ম্যারাডোনার ১০ নম্বর জার্সি খুব পছন্দ। ড্রেসিংরুমে গিয়ে গ্যারেকে হজের জার্সিটি দিয়ে লিনেকারের জার্সি নেন ম্যারাডোনা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন