আক্রমণে চট্টগ্রাম আবাহনী। ম্যাচে যদিও মারুফুলের দলের আক্রমণ বেশি দেখা যায়নি।
আক্রমণে চট্টগ্রাম আবাহনী। ম্যাচে যদিও মারুফুলের দলের আক্রমণ বেশি দেখা যায়নি। ছবি: বাফুফে

ম্যাচ শেষে কোচ মারুফুল হকের মুখে হাসি। অবশেষে প্রিমিয়ার লিগে জয়ের দেখা পেয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনী। সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচ জয়হীন ছিল চট্টগ্রামের দলটি। আজ সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে চট্টগ্রাম আবাহনী ১-০ গোলে হারিয়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে। একমাত্র গোলটি করেছেন মানিক মোল্লা।

শেখ রাসেলের কাছে ১-০ গোলের হার দিয়ে হতাশার শুরু চট্টগ্রাম আবাহনীর। এরপর আবাহনীর সঙ্গে ১-১ গোলে ড্রয়ের পর বসুন্ধরা কিংসের কাছেও হারের ব্যবধান ছিল ১-০। পরের ম্যাচে উত্তর বারিধারার সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র। পুলিশের বিপক্ষে তো জিততে জিততেও ড্র করে। শেষ পর্যন্ত ৩-৩ গোলে ড্র করে পয়েন্ট ভাগাভাগি করেছে চট্টগ্রাম আবাহনী। এরপর আজ এল কাঙ্ক্ষিত জয়।

বিজ্ঞাপন

যদিও এই জয়ে পয়েন্ট টেবিলে নিজেদের অবস্থানের পরিবর্তন করতে পারেনি চট্টগ্রাম আবাজনী। ৯ ম্যাচে ৩ জয়, ৩ ড্র ও ২ হারে ১২ পয়েন্ট নিয়ে ১৩ দলের লিগে সাত নম্বরেই রইল মারুফুলের দল। আর ৮ ম্যাচ শেষেও জয়হীন রইল ব্রাদার্স। ১ ড্র ও ৭ হারে পয়েন্ট মাত্র ১। ১৩ দলের লিগে আছে ১২তম স্থানে।

default-image

এমনিতেই ভঙ্গুর অবস্থা ব্রাদার্স ইউনিয়নের। মড়ার উপর খাঁড়ার ঘায়ের মতো তাদের কোচ আবদুল কাইয়ুম ক্লাব ছেড়ে চলে গেছেন।

কোচহীন দলটিকে ম্যানেজার আমের খান ডাগআউটে দাঁড়িয়ে নির্দেশনা দিয়েছেন আজ। এই দলের বিপক্ষে বল পজেশনে এগিয়ে থেকেও গোল পাচ্ছিল না চট্টগ্রাম আবাহনী। বলার মতো আক্রমণও হয়েছে কম। প্রথমার্ধে তাই গোলের দেখা মেলেনি।

অবশেষে ম্যাচের ৭৩ মিনিটে জয়সূচক গোলটি পায় চট্টগ্রাম আবাহনী। চিনেদু ম্যাথুর ফ্রি-কিকে মান্নাফ রাব্বির প্লেসিং গোলকিপার তিতুমীর চৌধুরী ফিরিয়ে দেন, ফিরতি বল হেড করে জালে জড়ান ডিফেন্ডার মানিক হোসেন মোল্লা। এরপর ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলেও আর গোলের দেখা পায়নি চট্টগ্রাম আবাহনী।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন