বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ম্যাচে এর আগেও নাটক এমনিতে কম হয়নি। ৪৮ মিনিটে মালি একটি পেনাল্টি পায়, সেটি থেকে গোল করেন মালির ফরোয়ার্ড ইব্রাহিমা কোনে। এরপর ৭৭ মিনিটে তিউনিসিয়াও একটা পেনাল্টি পায়।

নিজেদের বক্সে সাউদাম্পটনে খেলা মালিয়ান উইঙ্গার মুসা জেনেপোর হাতে বল লাগে, রেফারি প্রথমে দেখেননি। তবে ভিএআর দেখে জানায়—পেনাল্টি। কিন্তু ম্যাচে সমতা ফেরানোর সুবর্ণ সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি তিউনিসিয়া। ফরাসি ক্লাব সেঁত এতিয়েনে খেলা তিউনিসিয়ান ফরোয়ার্ড ওয়াহবি খাজরির শট ঠেকিয়ে দেন মালি গোলকিপার।

এর আট মিনিট পরই নাটক! রেফারি হঠাৎ লম্বা বাঁশি বাজিয়ে বসেন। অথচ ম্যাচের ঘড়ি তখন মাত্র ৮৫ মিনিট পেরিয়েছে! দুই দলই হতভম্ব, নিজেদের গুছিয়ে নিতে কয়েক সেকেন্ড সময় লাগার পর তিউনিসিয়ার কোচ-বদলি খেলোয়াড়েরা প্রতিবাদ জানান। হাতের ঘড়ি দেখিয়ে বোঝান, এখনো ম্যাচের নির্ধারিত সময়েরই পাঁচ মিনিট বাকি। এরপর যোগ করা সময় তো দু-তিন মিনিট থাকারই কথা।

default-image

রেফারি এই দফায় তিউনিসিয়ার ‘দাবি’ কানে তুললেন। আবার ম্যাচ শুরু করতে বললেন। এর মধ্যে আবার নাটক। জেনেপোর বদলে ৮১ মিনিটে মাঠে নামা মালিয়ান খেলোয়াড় আল-বিলাল তুরেকে ৮৭ মিনিটে তাঁকেই ‘লঘু পাপে গুরুদণ্ড’ দিয়ে দেন রেফারি।

মাঝমাঠে তিউনিসিয়ার ডিলান ব্রনের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে ট্যাকল করেছিলেন তুরে, কিন্তু সেকেন্ডের ভগ্নাংশখানেক দেরি হয়ে যায় তাঁর। ট্যাকলের মাত্রা, মাঠের যে জায়গায় ট্যাকলটা হয়েছে—সব বিবেচনায় নিয়ে হলুদ কার্ড হওয়ার মতো ঘটনা, কিন্তু রেফারি সিকাজোয়ে সরাসরি লাল কার্ড দেখিয়ে বসেন!

লাল কার্ডের সিদ্ধান্ত বলে ভিএআরে আবার দেখা হয়। ভিডিও সহায়ক রেফারি তখন মাঠের রেফারি সিকাজোয়েকে জানান, এটা লাল কার্ড হওয়া উচিত নয়। কিন্তু মাঠের পাশের মনিটরে দেখার পরও সিকাজোয়ে নিজের সিদ্ধান্তে অটল থাকেন। লাল কার্ড দেখেই মাঠ ছাড়তে হয় তুরেকে।

default-image

কিন্তু নাটকের সেখানেই শেষ হলে তো! কিছুক্ষণ পর আবার ম্যাচ শেষের বাঁশি, ম্যাচের ঘড়িতে তখন ৮৯ মিনিট ৪০ সেকেন্ড! নির্ধারিত সময়েরই ২০ সেকেন্ড বাকি, যোগ করা সময়ের তো হিসাবই হয়নি।

সমতায় ফেরার তাড়নায় ঝাঁপিয়ে পড়া তিউনিসিয়ার বিরক্তি তখন আর দেখে কে! কোচরা মাঠে রেফারিকে ঘিরে ধরেন, খেলোয়াড়েরাও। নিরাপত্তারক্ষীরা মাঠে নেমে তখন রেফারি সিকাজোয়েকে ঘিরে রাখেন, মাঠ থেকে বেরও করে নিয়ে যান।

এর মধ্যে ইংলিশ দৈনিক ডেইলি মেইল জানাচ্ছে, ২০১৮ সালে এই সিকাজোয়েকে দুর্নীতির অভিযোগে নিষিদ্ধ করেছিল আফ্রিকান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিএএফ। আফ্রিকান চ্যাম্পিয়নস লিগে এসপারেন্স ও প্রিমিয়েরো আগস্তো ক্লাবের মধ্যে ম্যাচে এসপারেন্সকে প্রথমে একটা বিতর্কিত পেনাল্টি উপহার দেন সিকাজোয়ে। এরপর আগস্তোর একটা গোল বাতিল করে দেন বিতর্কিত সিদ্ধান্তে।

২০১৮ বিশ্বকাপে রেফারিংয়ের অভিজ্ঞতা আছে সিকাজোয়ের। সেই বিশ্বকাপে বেলজিয়াম-পানামা ও জাপান-পোল্যান্ড ম্যাচ দুটিতে রেফারি ছিলেন তিনি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন