default-image
>নিজেকে মেসি-রোনালদোর চেয়ে বিশেষ কিছু কম বলে মনে করেন না সাবেক ডাচ মিডফিল্ডার ওয়েসলি স্নাইডার। তবে একটা কারণে শেষ পর্যন্ত মেসি-রোনালদোর কাতারে আসা হয়নি তাঁর

 ওয়েসলি স্নাইডারের নাম বললে মাথায় কোন ছবি ভেসে আসে?

 ভেসে আসে বল পায়ে এক শিল্পীর কথা। হোসে মরিনহোর মূল অস্ত্র হয়ে নীল-কালো ডোরাকাটা জার্সি গায়ে যিনি ইন্টারকে করেছিলেন ইউরোপসেরা। কিংবা বার্ট ফন মারউইকের মূল অস্ত্র হয়ে ক্রুইফ-বাস্তেনদের জনপ্রিয় করা ওই কমলা জার্সি গায়ে যিনি আরেকটু হলেই জিতে যাচ্ছিলেন বিশ্বকাপ। শেষটা যদিও জেতা হয়নি, তবে তা তাঁর প্রতিভা সম্পর্কে জনমনে প্রশ্ন তৈরি করতে পেরেছে সামান্যই।

সেটা স্নাইডার নিজেও বোঝেন। বোঝেন দেখেই এবার দাবি করেছেন, প্রতিভার দিক দিয়ে বার্সা তারকা লিওনেল মেসি কিংবা জুভেন্টাসের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর চেয়ে পিছিয়ে ছিলেন না মোটেই। চাইলেই হতে পারতেন সবার সেরা, 'আমি হতে পারতাম মেসি বা রোনালদোর মতো। কিন্তু কখনোই আমি সেভাবে অনুভব করিনি যে আমাকে ওদের সমান হতেই হবে।'

কিন্তু কেন অনুভব করেননি? ইতালিয়ান সাংবাদিক জিয়ানলুকা দি মারজিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সেটাও উল্লেখ করেছেন। তাতে আরও উঠে এসেছে মেসি ও রোনালদোর তীব্র অধ্যবসায় ও ত্যাগের কথা, 'আমি আমার জীবনকে পুরোদমে উপভোগ করেছি। হয়তো কখনও রাতের খাবার খেয়ে আয়েশ করে একটু সুরা পান করেছি। লিও আর ক্রিস্টিয়ানো একদম আলাদা। ওরা আমার মতো না। ওরা অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছে (এই অবস্থায় আসার জন্য)।'

 মেসি-রোনালদোর কাতারে যে যেতে পারেননি, তাতে বিন্দুমাত্রও আপত্তি নেই সাবেক এই ডাচ তারকার, 'আমার কোণো সমস্যা নেই। আমি আমার ক্যারিয়ার নিয়ে সন্তুষ্ট। অসাধারণ একটি ক্যারিয়ার কাটিয়েছি।'

 আর সন্তুষ্ট হবেন না-ই বা কেন স্নাইডার? জুভেন্টাস-এসি মিলান বা রোমা-নাপোলি নয়, ইতালির ইতিহাসে 'ট্রেবল' জেতা একমাত্র ক্লাব এখনও ইন্টার মিলান। আর তাঁদের এই 'ট্রেবল' জেতার পেছনে মরিনহোর মস্তিষ্ক তো কাজ করেছেই, কাজ করেছে স্নাইডারের শৈল্পিক ফুটবলও। যে অর্জনের কারণে আরেকটু হলেই ব্যালন ডি'অর জিতে যাচ্ছিলেন ২০১০ সালে। পারেননি, সেবার বিশ্বের সেরা তারকা হন মেসি। কিন্তু অনেকের চোখেই, সেবার মেসি নন, পুরষ্কারটির যোগ্য বিজয়ী ছিলেন স্নাইডার।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0