>
default-image

মাঠের বাইরে আদালতে ‘জিত’ হয়েছে নেইমারের। নিজের নামের স্বত্ব নিয়ে মামলাটি জিতে গেছেন তিনি।

সময়টা যে নেইমারের খুব ভালো যাচ্ছে, এটা বলা যাবে না। এই তো কদিন আগেই দীর্ঘ চোট কাটিয়ে ফিরলেন। পিএসজির হয়ে ফ্রেঞ্চ লিগ জিতলেও সতীর্থদের সঙ্গে তাঁর সমস্যা বারবারই সামনে চলে এসেছে। বিতর্কে জড়িয়েছেন মাঠে ও মাঠের বাইরে নানা ঝামেলায় জড়িয়ে। তবে মৌসুমের একেবারে শেষ দিকে এসে মাঠের বাইরে সুখবর মিলেছে ব্রাজিলীয় তারকার। ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) আদালতে একটি কপিরাইট মামলা জিতেছেন তিনি।

ঘটনার সূত্রপাত বছর তিনেক আগে ২০১৬ সালে। অন্য সব খেলোয়াড়ের মতো নিজের নামের স্বত্ব কিনতে চেয়েছিলেন নেইমার। কিন্তু সেটি রেজিস্ট্রেশন করতে গিয়েই বাঁধে বিপত্তি। দেখা যায় ‘নেইমার’ নামের স্বত্ব নাকি চার বছর আগেই এক ব্রাজিলীয় ব্যবসায়ী কিনে বসে আছেন। কার্লোস মোরেইরা নামের সেই ব্যবসায়ী ২০১২ সালে নেইমার নামের স্বত্ব কিনতে আবেদন করেছিলেন, তখন ফাঁকা মাঠে সেটি পেয়েও গিয়েছিলেন। সেই নাম তিনি ব্যবহার করা শুরু করেন বাণিজ্যিকভাবেও।

২০১৬ সালেই এই অবস্থা দেখে ইইউ আদালতে মামলা দায়ের করেছিলেন নেইমার। শুরু হয় মামলার শুনানি। মোরেইরা দাবি করেন তিনি যখন ‘নেইমার’ নামের স্বত্ত্বের জন্য আবেদন করেন, তখন নাকি ফুটবলার নেইমারকে তিনি চিনতেন না। মোরেইরার যুক্তি স্বভাবতই ধোপে টেকেনি। ২০১১ সালেই লাতিন অঞ্চলের সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছিলেন নেইমার। গোটা ব্রাজিলই তখন চিনে ফেলেছে নেইমার নামটি। অথচ, মোরেইরা জানতে পারলেন না! আর বেছে বেছে ‘নেইমার’ নামের স্বত্বই কিনতে গেলেন তিনি!

মামলাটি খুব সহজেই জিতেছেন নেইমার। মোরেইরা যে মিথ্যে যুক্তি দিচ্ছেন, সেটি আদালতের কাছে পরিষ্কার হয় আরেকটি কাণ্ডে। নেইমার নামের স্বত্ব কেনার দিনই এই ব্যবসায়ী ‘ইকার ক্যাসিয়াস’ নামের স্বত্ব কিনতে চেয়েছিলেন! হ্যাঁ, ২০১০ বিশ্বকাপজয়ী স্পেন অধিনায়ক ও বিশ্বের অন্যতম সেরা গোলরক্ষক ক্যাসিয়াসের নামের স্বত্বই কিনতে চেয়েছিলেন মোরেইরা। এই কাণ্ডেই আদালত নিশ্চিত হয়ে যায় উদ্দেশ্যের অসততা সম্পর্কে।

শুধু নেইমার নন, এর আগে লিওনেলে মেসিকেও নিজের নামস্বত্ব নিতে আদালতে দৌড়াতে হয়েছে। স্প্যানিশ সাইকেলের যন্ত্রাংশ মেরামতকারী প্রতিষ্ঠান ‘ম্যাসি’র সঙ্গে প্রায় ৭ বছর লড়াই করে নিজের নামস্বত্ব নিজের কাছে আনতে পেরেছেন আর্জেন্টাইন তারকা। নেইমার অবশ্য সেদিক দিয়ে বেশ সৌভাগ্যবানই, তিন বছরের মাথাতেই জিতে নিলেন নিজের নাম-স্বত্ব।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন