বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

কাঁধের বেশ কিছু চোটে পড়েছেন ওমেগা। বলা হচ্ছে, চোটের অবস্থা এতই খারাপ যে ভারী ওজন বইতে পারছেন না ৩৮ বছর বয়সী এই তারকা। শুধু তা–ই নয়, জানা গিয়েছে, ২০১৮ সাল থেকে ‘ভার্টিগো’-তে আক্রান্ত তিনি।

ভার্টিগোতে আক্রান্ত মানুষের কাছে মনে হয়, আশপাশের সবকিছুই ঘুরছে, নড়াচড়া করছে। যে কারণে অনেক সময় বমি হওয়া, কানে কম শোনা—এমন কিছু সমস্যারও উদ্ভব ঘটতে পারে। নিজের ভারসাম্য বজায় রাখা, প্রতিদিনের নিয়মিত কাজ করতেও সমস্যা হয়। এত দিন ধরে এ সমস্যা নিয়েই রেসলিং করে যাচ্ছিলেন এই তারকা। পেইজের হাতে চ্যাম্পিয়নশিপ তুলে দিয়ে চিকিৎসকের টেবিলে যেতে পারেন, রিংয়ের বাইরে থাকতে পারেন বেশ কিছু দিন, বিভিন্ন রেসলিং–বিষয়ক ওয়েবসাইট এখন এমন খবরই দিচ্ছে।

default-image

ওদিকে নির্ভরযোগ্য রেসলিং–বিষয়ক সাংবাদিক ডেভ মেলৎজার রেসলিং অবজারভার রেডিওকে জানিয়েছেন, আজ বুধবার একাধিক সমস্যা নিয়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হবেন ওমেগা। বিশেষ করে ঘাড়ের একাধিক সমস্যার জন্য চিকিৎসা নেবেন তিনি।

মেলৎজারের মতে, চোটের কারণে ওমেগা যদি চ্যাম্পিয়ন থাকা অবস্থাতেই কিছুদিন বিশ্রাম চাইতেন, কর্তৃপক্ষ সে দাবিও মেনে নিত। কিন্তু ওমেগা নিজেই অমনটা চাননি। প্রিয় বন্ধু অ্যাডাম পেইজকে যেন এইডব্লু চ্যাম্পিয়ন হিসেবে নিজেই প্রতিষ্ঠিত করে যেতে পারেন, পেইজের সঙ্গে ‘প্রোগ্রাম’টা যেন শেষ করতে পারেন, এ কারণে ‘ফুল গিয়ার’ পর্যন্ত লড়াই করে গিয়েছেন ওমেগা। এখন চিকিৎসার কারণে ওমেগা রিংয়ের বাইরে থাকবেন কি না, থাকলেও কত দিন—এ নিয়ে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো কিছু জানা যায়নি।

default-image

শুধু ওমেগাই নন, এইডব্লুর আরেক তারকা এডি কিংস্টনও (এডওয়ার্ড মুর) চোটে পড়েছেন ‘ফুল গিয়ার’-এর পর। তবে ওমেগার মতো হয়তো রিংয়ের বাইরে থাকবেন না তিনি। ফুল গিয়ারে সিএম পাঙ্কের (ফিলিপ জ্যাক ব্রুকস) বিপক্ষে হেরেছেন কিংস্টন।

ওমেগার আগে এইডব্লু ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ক্রিস জেরিকো (ক্রিস ইরভাইন) ও জন মক্সলি (জোনাথন গুড)। মক্সলিকে হারিয়ে প্রায় বছরখানেক আগে এইডব্লু চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন ওমেগা। তার আগে এই প্রতিষ্ঠানে এই অ্যাডাম পেইজের সঙ্গে দল করেই জিতেছিলেন ‘এইডব্লু ওয়ার্ল্ড ট্যাগ টিম চ্যাম্পিয়নশিপ’। ইতিহাসের অন্যতম সেরা রেসলার মানা হয় এই ওমেগাকে। ‘প্রো রেসলিং ইলাস্ট্রেটেড’-এর জরিপে ২০১৮ আর ২০২১ সালের সেরা রেসলার নির্বাচিত হয়েছেন ওমেগা।

‘নিউ জাপান প্রো রেসলিং’-এর হয়ে একবার ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন, একবার ইন্টারকন্টিনেন্টাল চ্যাম্পিয়ন ও দুবার জুনিয়র হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ওমেগা। সেই ১৯৮২ সালে থেকে ‘রেসলিং অবজারভার নিউজলেটার’ এর সাংবাদিক মেলৎজার বিশ্বব্যাপি আয়োজিত হওয়া রেসলিং ম্যাচগুলোর মান নির্ধারণ (রেটিং) করে থাকেন। পাঁচের মধ্যে রেটিং করে থাকেন তিনি। যে ম্যাচ পাঁচে পাঁচ পায়, সে ম্যাচের মান তাঁর মতে সবচেয়ে বেশি। রেসলিং জগতে মেলৎজারের এই রেটিংয়ের বিশেষ মূল্য আছে।

কেনি ওমেগার ১৮টা ম্যাচের রেটিং পাঁচ বা তদূর্ধ্ব দিয়েছেন এই মেলৎজার। বর্তমানে নিয়মিত রেসলিং করেন এমন তারকাদের মধ্যে ‘নিউ জাপান প্রো রেসলিং’ এর কাজুচিকা ওকাদা (২১) ছাড়া আর কারওর এতগুলো ম্যাচ এতবার পাঁচ বা তদূর্ধ্ব রেটিং পায়নি। এমন কি মেলৎজারের মতে কিছু ম্যাচ এতই ভালো যে পাঁচের চেয়েও বেশি রেটিং এসেছে সেসব ম্যাচে। ওকাদা-ওমেগার কিছু ম্যাচই যার প্রমাণ, যাদের এক ম্যাচ পাঁচের মধ্যে সাত পর্যন্ত রেটিং পেয়েছে!

সেই ওমেগাকেই এখন কিছুদিন হয়তো রিংয়ের বাইরে থাকতে হচ্ছে।

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন