বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুধু ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচই নয়, সেদিনের মালয়েশিয়া-জাপান এবং বাংলাদেশ-দক্ষিণ কোরিয়া ম্যাচও এক দিন পিছিয়ে ১৭ ডিসেম্বর নেওয়া হয়েছে।

হকি ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ জানিয়েছেন, ‌‘বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে অনেক দেশের রাষ্ট্রপ্রধান এবং সরকারপ্রধান সেদিন ঢাকায় থাকবেন। যে কারণে ভারত ও পাকিস্তানের মতো দুই দলের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা দেওয়া কঠিন হতো। এ জন্যই আমরা ওই দিনের তিনটি ম্যাচই পিছিয়ে দেওয়ার অনুরোধ করেছিলাম। এশিয়ান হকি ফেডারেশন আমাদের আবেদনে সাড়া দেওয়ায় আমরা খুশি।’

default-image

টুর্নামেন্টের বাকি ম্যাচগুলোর তারিখ ও সময় অপরিবর্তিত থাকবে বলে জানিয়েছেন মোহাম্মদ ইউসুফ।

এমনিতেই খেলার মাঠে ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখি হওয়া মানেই বাড়তি উত্তেজনা। দুই দেশের ক্রিকেট ম্যাচে সব সময়ই এই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। হকি মাঠেও সেই উত্তাপের আঁচ থাকে। এবারের চ্যাম্পিয়নস ট্রফি হকি ঢাকায় বাংলাদেশি হকিপ্রেমীদের জন্য তেমনই একটা সুযোগ করে দিচ্ছে দুই পরাশক্তির লড়াই উপভোগের।

করোনায় গত বছর স্থগিত হয়ে গিয়েছিল চ্যাম্পিয়নস ট্রফি হকি। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ হবে ১৪ ডিসেম্বর মালয়েশিয়ার বিপক্ষে। ১৫ ডিসেম্বর বাংলাদেশ খেলবে ভারতের বিপক্ষে। ১৭ ডিসেম্বর বদলে যাওয়া সূচিতে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া।

এরপর ১৮ ডিসেম্বর বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে জাপানের। গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচটি পাকিস্তানের বিপক্ষে, খেলবে ১৯ ডিসেম্বর।

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন