বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
সব বিশ্বকাপেই চাপ থাকে। সেখানে স্নায়ু ঠান্ডা রেখে নিজের নিশানায় তির ছোড়াটাই আর্চারদের কাজ। আমার মনে হয় ওরা এবার প্রতিপক্ষকে বেশি সমীহ করে ফেলেছে।
জাতীয় দলের জার্মান কোচ মার্টিন ফ্রেডরিখ

রিকার্ভ এককে দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশের সাগর ইসলাম ৭-১ সেট পয়েন্টে হারায় ইন্দোনেশিয়ার রিয়াউ সালসাবিল্লাহকে। তবে তৃতীয় রাউন্ডে তিনি হেরে গেছেন ইউক্রেনের ইভান খোজহোকারের কাছে, ৬-২ সেট পয়েন্টে। দ্বিতীয় রাউন্ডে হাকিম আহমেদ ৬-১ সেট পয়েন্টে হেরে গেছেন গত টোকিও অলিম্পিকে রূপাজয়ী ইতালির মাওরো নেসপালির কাছে। কমপাউন্ড পুরুষদের এককে প্রথম রাউন্ডে জেতেন আশিকুজ্জামান। কিন্তু দ্বিতীয় রাউন্ডে ডেনমার্কের মাথিয়াস ফুলারটনের কাছে ১৪৭-১৪২ পয়েন্টে হেরে বিদায় নেন তিনি।

হতাশ করেছেন রোমান সানাও। দ্বিতীয় রাউন্ডে রোমান ৬-৫ সেট পয়েন্টে হেরেছেন তুরস্কের গোরকান মারাসের কাছে। ওদিকে রিকার্ভ মেয়েদের এককে নাসরিন আক্তার, দিয়া সিদ্দিকী ও ফাহমিদা সুলতানার কেউ প্রথম রাউন্ডের বাধা পেরোতে পারেননি।
নাসরিন চীনা তাইপের পেং চিয়া মাওয়ের কাছে হেরেছেন ৬-০ সেট পয়েন্টে। দিয়া স্লোভেনিয়ার উমে আনারের কাছে হেরেছেন ৪-৬ সেট পয়েন্টে। ফাহমিদা টাইব্রেকারে হেরেছেন ফ্রান্সের অড্রে এডিকমের কাছে।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের আর্চারদের স্কোরের এমন হাল দেখে হতাশ জাতীয় দলের জার্মান কোচ মার্টিন ফ্রেডরিখ। তুরস্ক থেকে মুঠোফোনে সেই হতাশার কথা বলছিলেন তিনি, ‘অবশ্যই ছেলেদের রিকার্ভ দলের পারফরম্যান্স নিয়ে আমি সন্তুষ্ট নই। দিয়াও এবার বিশ্বকাপে নিজেকে খুঁজে পায়নি।’

default-image

রিকার্ভের ছেলেদের দলে এবার খেলেছেন রোমান সানা, হাকিম আহমেদ ও মোহাম্মদ সাগর ইসলাম। র‍্যাঙ্কিং রাউন্ডের পারফরম্যান্স বিবেচনায় সবচেয়ে বাজে স্কোর করেছেন রোমান। ৬২৭ পয়েন্ট পেয়ে ১১০ জনের মধ্যে হন ৮৭তম। অথচ গত মাসে টঙ্গীতে জাতীয় আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপে রোমানের স্কোর ছিল ৬৬৪।

এমনিতেই নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে কয়েক মাস ধরে হতাশায় ভুগছেন রোমান। জাতীয় আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপের কোয়ার্টার ফাইনালে হেরেছিলেন দশম শ্রেণির ছাত্র রকিব মিয়ার কাছে। এবার বিশ্বকাপে বাদ পড়েন দ্বিতীয় রাউন্ডে। যদিও তুরস্কের মারাস গুরকানের কাছে হেরেছেন টাইব্রেকারে।

কিন্তু রোমানের খেলার ধরন নিয়ে মোটেও সন্তুষ্ট নন কোচ, ‘রোমান খুব রক্ষণাত্মক শুটিং করছে। টাইমিংটা ভালো হচ্ছে না। এশিয়ান গেমসের আগে ওকে নিয়ে আরও বেশি কাজ করতে হবে। খেলা শেষে আলাদা করে ওর সঙ্গে কথা বলেছি। কোথায় সমস্যা হচ্ছে সেটা জানার চেষ্টা করছি। ওর ভিডিওগুলো বিশ্লেষণ করছি। আশা করছি, দ্রুত বাজে ফর্ম কাটিয়ে উঠবে সে।’

default-image

বিশ্বকাপে সবচেয়ে ভালো করেছেন তরুণ আর্চার সাগর ইসলাম। ৬৫৭ পয়েন্ট পেয়ে তিনি বাছাইপর্বে হয়েছিলেন ২৯তম। নকআউট পর্বের তৃতীয় রাউন্ডে ওঠা সাগরের প্রশংসা ঝরল মার্টিন ফ্রেডরিখের কণ্ঠে, ‘এবারের বিশ্বকাপে সাগরই যা একটু ভালো করেছে। ওর স্কোর ছিল যথেষ্ট ভালো।’

হাকিম আহমেদ এবার নকআউট পর্বে দ্বিতীয় রাউন্ডেই মুখোমুখি হন টোকিও অলিম্পিকের রুপাজয়ী ইতালির নেসপোলি মাউরোর। স্বাভাবিকভাবেই হেরেছেন হাকিম। কিন্তু কোচের মনে হয়েছে মাঠে সেরাটা দিতে পারেননি হাকিম, ‘অবশ্যই আর্চারিতে বড় নাম নেসপোলি। কিন্তু খেলার মাঠে নাম তত গুরুত্বপূর্ণ নয়। সেখানে প্রতিটি মুহূর্তেই আপনাকে সেরাটা দিতে হবে।’

তবে কি বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে চাপেই ভেঙে পড়েছে বাংলাদেশ দল? কোচ অবশ্য এসব বিষয়কে অজুহাত হিসেবে দেখতে চাইছেন না, ‘সব বিশ্বকাপেই চাপ থাকে। সেখানে স্নায়ু ঠান্ডা রেখে নিজের নিশানায় তির ছোড়াটাই আর্চারদের কাজ। আমার মনে হয় ওরা এবার প্রতিপক্ষকে বেশি সমীহ করে ফেলেছে। দেশে ফিরে এসব নিয়ে আরও কাজ করতে হবে।’

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন