আজ ছেলেদের র‍্যাঙ্কিং রাউন্ডে ১১০ জন আর্চারের মধ্যে হয়েছেন ৮৬তম। এই ইভেন্টে বাংলাদেশের তিন আর্চারের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ স্কোর রোমানের। তিনি করেছেন ৬২৭ পয়েন্ট। অথচ গত মাসে টঙ্গীতে রোমানের স্কোর ছিল ৬৬৪।

রোমান যদিও নকআউট পর্বের প্রথম রাউন্ডে জয় দিয়ে শুরু করেছেন বিশ্বকাপ অভিযান। প্রথম রাউন্ডে গ্রেট ব্রিটেনের জেমস উডগেটকে হারিয়েছেন ৬-০ সেট পয়েন্টে। দ্বিতীয় রাউন্ডে রোমানের প্রতিপক্ষ তুরস্কের মারাস গুরকান।

default-image

র‍্যাঙ্কিং রাউন্ডে ছেলেদের বিভাগে সবচেয়ে ভালো স্কোর করেছেন মোহাম্মদ সাগর ইসলাম। তিনি ৬৫৭ পয়েন্ট পেয়ে হয়েছেন ২৯তম। টঙ্গীতে গত মাসে সাগর করেছিলেন ৬৪৬ পয়েন্ট। স্কোরে উন্নতি তো হয়েছেই, নকআউট পর্বের প্রথম রাউন্ডেও জয় পেয়েছেন সাগর। মরক্কোর এল বসুনিয়াকে তিনি ৭-১ সেট পয়েন্টে হারিয়েছেন। পরের রাউন্ডে তিনি খেলবেন ইন্দোনেশিয়ার সালসাবিলি রিয়াউয়ের বিপক্ষে।

বাংলাদেশের আরেক আর্চার হাকিম আহমেদ র‍্যাঙ্কিং রাউন্ডে হয়েছেন ৫৯তম। হাকিমের স্কোরেও অবনতি হয়েছে। টঙ্গীতে গত মাসে ৬৫০ স্কোর করেন হাকিম। এবার তুরস্কে করেন ৬৪৮। যদিও নকআউটের প্রথম রাউন্ডে জিতেছেন হাকিম। ক্রোয়েশিয়ার কারনি লোভরোকে ৬-২ সেট পয়েন্টে হারিয়েছেন হাকিম। পরের রাউন্ডে হাকিম মুখোমুখি হবেন টোকিও অলিম্পিকে সোনাজয়ী ইতালির আর্চার নেসপোলি মাউরোর।

রিকার্ভের মেয়েদের ইভেন্টেও র‍্যাঙ্কিং রাউন্ডে হতাশাজনক পারফরম্যান্স ছিল। দিয়া সিদ্দিকী গত মাসে টঙ্গীতে ৬৫৩ স্কোর করলেও তুরস্কে আজ করেছেন ৬২৮ পয়েন্ট। তিনি হয়েছেন ৪০তম। নকআউট পর্বে দিয়া খেলবেন স্লোভেনিয়ার উমর আনার বিপক্ষে। ৬২০ স্কোর করে ফাহমিদা সুলতানা ৫২তম। অবশ্য ফাহমিদার স্কোরে উন্নতিই হয়েছে। জাতীয় আর্চারিতে গত মাসে ৬০৯ পয়েন্ট করেছিলেন তিনি।

নকআউট পর্বে ফাহমিদা খেলবেন ফ্রান্সের অড্রে আডিকমের বিপক্ষে। বাংলাদেশের মেয়েদের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ স্কোর করেছেন নাসরিন আক্তার। তিনি ৬১১ পয়েন্ট করে হয়েছেন ৬৪তম। অথচ বাংলাদেশে গত মাসে করেছিলেন ৬৩৩ পয়েন্ট। নকআউট পর্বে নাসরিন প্রথম রাউন্ডে খেলবেন চীনা তাইপের পেং চিয়া-মাওয়ের বিপক্ষে।

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন