default-image

গত রোববার সাঁতারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা নতুন ‘লিঙ্গ অন্তর্ভুক্তি’ নিয়ম প্রকাশ করেছে। জানিয়েছে ফিনার সদস্য ফেডারেশনের ৭১ দশমিক ৫ শতাংশই এ সিদ্ধান্তের পক্ষে ছিলেন। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, পুরুষ থেকে নারীতে রূপান্তরিত ট্রান্সজেন্ডার অ্যাথলেটরা এখন সাঁতারে মেয়েদের ইভেন্টে অংশ নিতে পারবেন। কিন্তু সে ক্ষেত্রে ১২ বছর বা বয়ঃসন্ধির দ্বিতীয় পর্যায়ে পুরুষদের বয়ঃসন্ধির প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার আগেই রূপান্তরিত হয়েছেন, এমন অ্যাথলেটরাই শুধু অংশ নিতে পারবেন। ২০ জুন ২০২২ থেকে এ নিয়ম কার্যকর হয়েছে।

২০২২ সালে ট্রান্সজেন্ডার লিয়া থমাস যুক্তরাষ্ট্রে আন্তকলেজ চ্যাম্পিয়নশিপে ৫০০ গজ ফ্রি স্টাইলের সোনা জেতেন। ২০২০ সাল পর্যন্ত ছেলেদের দলে খেলা এই সাঁতারুর অংশগ্রহণ নিয়ে বড় বিতর্ক ওঠে। লিঙ্গ অন্তর্ভুক্তি নিয়ম নিয়ে আলোচনা নতুন করে শুরু হয়। নতুন পাস হওয়া আইনে থমাস আর মেয়েদের ইভেন্টে অংশ নিতে পারবেন না।

default-image

বহু আগে থেকেই এ নিয়মের পক্ষে কথা বলছিলেন কেইটলিন জেনার। ১৯৭৬ অলিম্পিকে ডেকাথলনে সোনা জিতেছিলেন জেনার। পুরুষদের ইভেন্টেই অংশ নিয়ে সোনা জেতা এই অ্যাথলেট টুইটে নিজের আনন্দের কথা প্রকাশ করেছেন, ‘এটা কাজ করেছে! আমাকে অনেক সমালোচনা শুনতে হয়েছে, কিন্তু যা ন্যায্য, তা ন্যায্যই! আপনি যদি ছেলেদের বয়ঃসন্ধির মধ্য দিয়ে যান, তাহলে আপনার মেয়েদের কাছ থেকে মেডেল কেড়ে নেওয়া উচিত নয়। এটাই শেষ কথা।’

ফিনার সভাপতি হুসেন আল-মুসাল্লাম এ ব্যাপারে বলেছে, ‘অ্যাথলেটদের অংশগ্রহণের অধিকার রক্ষা করতে হবে, কিন্তু এটাও তো ঠিক, প্রতিদ্বন্দ্বিতার ভারসাম্যও রক্ষা করতে হবে। বিশেষ করে ফিনার মেয়েদের প্রতিযোগিতায়।’

বয়ঃসন্ধির সময়টায় ছেলে ও মেয়েদের মধ্যে পারফরম্যান্সের যে ব্যবধান সৃষ্টি হয়, সেটি মাথায় রেখেই ফিনা এ নিয়ম করেছে বলে জানিয়েছে। জেনারেরও ধারণা, বয়ঃসন্ধির পর রূপান্তরিত ট্রান্সজেন্ডাররা মেয়েদের চেয়ে বাড়তি সুবিধা পান শারীরিক দিক থেকে। আর এ কারণেই অন্য ট্রান্সজেন্ডারদের সমালোচনার মুখেও নিজের অবস্থানে পিছপা হননি, ‘মেয়েদের খেলা রক্ষা করতেই হবে। বামপন্থী উগ্রবাদী চিন্তা ও “পরিচিতি রাজনীতি”র চাপে মাথা নত করতে পারি না আমরা। এটা ন্যায্য নয়, আমাদের স্কুলগুলোয় মেয়েদের খেলা রক্ষা করতে হবে।’

নিজের অবস্থান যে সমকামীবিরুদ্ধ নয় বা ট্রান্সজেন্ডার–বিরুদ্ধ নয়, সেটা আরেক টুইটে জানিয়েছেন জেনার, ‘পরিষ্কার বোঝা যায়, এমন (সমকামীবিদ্বেষী নয়, এটা কমন সেন্স) একটা বিষয়ে যখন কথা বলছিলাম, তখন যাঁরা পাশে ছিলেন, তাঁদের সবাইকে ধন্যবাদ। আমি খুশি যে আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকসের লোকজন এ নিয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছে। আমি ক্রীড়াঙ্গনে মেয়েদের অধিকার নিয়ে কথা বলে যাব, কাজ করে যাব।’

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন