বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পাঁচ সেটের রোমাঞ্চকর লড়াই শেষে জার্মানির আলেকজান্ডর জভেরভকে হারিয়ে ইউএস ওপেনের ফাইনালে উঠেছেন জোকোভিচ। এর আগে বছরের প্রথম তিনটি গ্র্যান্ড স্লামই জিতেছেন তিনি। এই তিনটি গ্র্যান্ড স্লামে ম্যাচ জিতেছেন ২১টি, ইউএস ওপেনের সেমিফাইনাল পর্যন্ত সংখ্যাটা ২৭। আজ আরেকটি ম্যাচ জিতলেই জোকোভিচ হয়ে যাবেন ইতিহাস। ৫২ বছরের মধ্যে প্রথম পুরুষ খেলোয়াড় হিসেবে জিতবেন ক্যালেন্ডার গ্র্যান্ড স্লাম, মানে গড়বেন এক মৌসুমে সব কটি গ্র্যান্ড স্লাম জয়ের কীর্তি। এ ছাড়া আছে রজার ফেদেরার ও রাফায়েল নাদলকে ছাড়িয়ে সর্বোচ্চ গ্র্যান্ড স্লাম জয়ী হওয়ার হাতছানিও।

default-image

১৯৬৯ সালে সর্বশেষ এ কীর্তিটি গড়েছিলেন রড লেভার। ৮৩ বছর বয়সী কিংবদন্তি লেভার পরশু রাতে গ্যালারিতে বসে দেখেছেন ইতিহাসের পথে জোকোভিচের আরেকটু এগিয়ে যাওয়া। প্রথম সেট হেরে ম্যাচ শুরু করা জোকোভিচ পরশু জভেরভকে হারিয়ে একটি প্রতিশোধও যেন নিলেন! জার্মানির এই তারকার কাছে টোকিও অলিম্পিকের সেমিফাইনালে হেরেই যে মাস দেড়েক আগে ভেঙেছিল তাঁর গোল্ডেন স্লাম জয়ের স্বপ্ন!

default-image

প্রতিশোধ নিতে পেরে খুশি কি না, এমন প্রশ্নের উত্তরে অবশ্য জোকোভিচ বলেছেন, ‘কেন খুশি হব! কাজ তো এখনো শেষ হয়নি। আমি জানি সবাই ইতিহাস নিয়ে কথা বলতে চায়। কিন্তু আমি সেটাই করতে চাই, যেটা আমার জন্য কাজে আসবে।’ মনে করিয়ে দিলেন ফাইনালে তাঁর প্রতিপক্ষে দানিল মেদভেদেভও কম শক্তিশালী নন, ‘আমি এমন একজন খেলোয়াড়ের মুখোমুখি হতে যাচ্ছি, যে কিনা দুর্দান্ত ছন্দে আছে।’

default-image

মেদভেদেভ যতই ছন্দে থাকুন, এবারের ইউএস ওপেনের ফাইনাল জিততে জোকোভিচ চোয়ালবদ্ধ পণ করেই এসেছেন। সেটি স্পষ্ট হয়েছে সেমিফাইনাল জয়ের পর তাঁর কথায়ও, ‘আমি এ ম্যাচটিকে আমার ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ হিসেবে নিচ্ছি। এটা সম্ভবত আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ হবে। আবার না–ও হতে পারে। তবে এ বছরের জন্য অবশ্যই এটা আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ।’ আর সেই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে যেটা তিনি করতে চান, সেটা বোধ হয় সবারই জানা, ‘আমি একটি ছবিই আঁকছি—ট্রফিটা উঁচিয়ে ধরে আছি!’

টেনিস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন