বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার হামলার জেরেই এই সিদ্ধান্ত। রাশিয়ার সঙ্গে এ যুদ্ধে সহযোগীর ভূমিকায় আছে বেলারুশও। তাই উইম্বলডনের আয়োজক কমিটি এ দুই দেশের অ্যাথলেটদের নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ফিফা এর আগে রাশিয়া ও রুশ ক্লাবগুলোকে শাস্তি দিলেও টেনিসে এত দিন যুদ্ধের প্রভাব পড়েনি। উইম্বলডনই প্রথম টেনিস টুর্নামেন্ট হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ছেলেদের টেনিসের র‍্যাঙ্কিংয়ের দ্বিতীয় সেরা তারকা এখন মেদভেদেভ। ওদিকে শীর্ষ দশে রাশিয়ান আরেক খেলোয়াড়ও আছেন, আন্দ্রেই রুবলেভ (৮)। মেয়েদের সাবেক শীর্ষ তারকা ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কাও এই নিষেধাজ্ঞার কারণে উইম্বলডনে থাকতে পারবেন না। অথচ এত দিন এটিপি, ডব্লুটিএ ট্যুরে নির্বিঘ্নে খেলছিলেন তাঁরা। এমনকি আগামী মাসে ফ্রেঞ্চ ওপেনেও নাম লিখিয়েছেন তাঁরা।

default-image

ছেলেদের টেনিসের শীর্ষ ত্রিশে আরও দুই রাশিয়ান তারকা আছেন। ওদিকে মেয়েদের শীর্ষ বিশেও আছেন দুজন বেলারুশ ও একজন রাশিয়ান তারকা। এঁদের মধ্যে বর্তমানে বিশ্বের চার নম্বর তারকা আরিনা সাবালেঙ্কাও আছেন।

ওদিকে এমন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাখ্যান করেছে ক্রেমলিন। তাদের দাবি, রাশিয়ান টেনিস তারকাকে নিষিদ্ধ করলে টুর্নামেন্টেরই ক্ষতি হবে। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোচ বলেছেন, ‘যেহেতু রাশিয়া টেনিসে খুব শক্তিশালী, এতে এই প্রতিযোগিতাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। খেলার মানুষদের রাজনৈতিক চক্রান্তে বলি বানানো অগ্রহণযোগ্য। আশা করি, খেলোয়াড়েরা তাঁদের ফিটনেস হারাবেন না।’

টেনিস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন