বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

টমাস বাখের সঙ্গে পেংয়ের সে ‘সাক্ষাতের’ ব্যাপারে আইওসি এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘তিনি বলেছেন, তিনি নিরাপদে আছেন, ভালোই আছেন। বেইজিংয়ে নিজের ঘরে আছেন। আপাতত তাঁর ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা হোক, সেটাই চাইছেন। এ কারণেই সময়টা পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে কাটাচ্ছেন। আর যে খেলাকে এত ভালোবাসেন, সেই টেনিস খেলা চালিয়ে যাবেন।’

২০১৩ উইম্বলডন ও ২০১৪ ফ্রেঞ্চ ওপেনে মেয়েদের দ্বৈতে শিরোপাজয়ী শুয়াইয়ের সঙ্গে বাখের ভিডিও কলে আরও অংশ নিয়েছিলেন আইওসি অ্যাথলেট কমিশনের প্রধান এমা টারহো এবং চীন টেনিস অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সদস্য ও আইওসির বর্তমান সদস্য লি লিংওয়েই।

default-image

এই ভিডিও কল এমন এক সময় প্রকাশিত হলো, যখন আইওসির ওপর সবদিক থেকে চাপ বাড়ছিল। ২০২২ শীতকালীন অলিম্পিক আয়োজিত হবে চীনে। এ অবস্থায় একজন শীর্ষ অ্যাথলেটের এভাবে লোকচক্ষুর আড়ালে চলে যাওয়ার পরও আইওসি কেন চুপ করে আছে, সে ব্যাপারে চারদিক থেকে সমালোচনার ঝড় বইতে শুরু করেছে। এদিকে সেই ভিডিও কলে টমাস বাখ নাকি শুয়াইকে ডিনারের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। আগামী জানুয়ারিতে বাখ যখন বেইজিংয়ে যাবেন, তখন তাঁর সঙ্গে ডিনার করার সে আমন্ত্রণ নাকি ‘উৎসাহের সঙ্গে গ্রহণ করেছেন শুয়াই’।

ভিডিও কলের পর টারহো বলেছেন, ‘পেং শুয়াই ভালো আছে দেখে স্বস্তি পেয়েছি, আমাদের মূল চিন্তা ছিল সেটি নিয়েই। তাকে দেখে বেশ প্রফুল্ল মনে হয়েছে। তাঁকে আমি বলেছি, যেকোনো সময় সাহায্য করতে প্রস্তুত আছি। আমার প্রস্তাবে সে আনন্দিত।’

default-image

তবে আইওসির এমন ভিডিও ও বিবৃতিতে সন্তুষ্ট নয় মেয়েদের টেনিস অ্যাসোসিয়েশন (ডব্লিউটিএ)। সংস্থাটির এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘পেংকে ইদানীং বেশ কিছু ভিডিওতে দেখে ভালো লাগছে, কিন্তু এতে তাঁর অবস্থা নিয়ে ডব্লিউটিএর চিন্তা কমাচ্ছে না বা কোনো বাধা ছাড়া তিনি মত প্রকাশ করতে পারছেন কি না, এ নিয়ে দুশ্চিন্তাও দূর হচ্ছে না। আমরা যে যৌন হয়রানির বিষয়ে কোনো বাধা ছাড়া পূর্ণ, স্বচ্ছ ও ন্যায্য তদন্ত চাচ্ছি, যে ঘটনাই আমাদের চিন্তার জন্ম দিয়েছে। এই ভিডিও দেখে তা বদলানোর কোনো ইচ্ছা জাগছে না আমাদের।’

এদিকে কানাডার সাবেক অলিম্পিয়ান ও মানবাধিকার আইনজীবী নিকি ড্রাইডেনের ধারণা, এভাবে ভিডিও কলে অংশ নিয়ে আইওসি শুধু সংবাদমাধ্যমগুলোকে শান্ত করতে চাইছে। শুয়াইয়ের ঘটনায় শীতকালীন অলিম্পিক বয়কটের ডাক উঠেছে। সেটা এড়াতেই আইওসি এমন ‘লোকদেখানো’ কাজ করছে বলে ধারণা ড্রাইডেনের, ‘সে বেঁচে আছে দেখে স্বস্তি পাচ্ছি, কিন্তু এই “বেঁচে আছে” প্রমাণ দিতে ভিডিওতে তাকে যেভাবে দেখানো হলো, সেটা সুরক্ষার দিক থেকে খুবই প্রশ্নবিদ্ধ। আমার কাছে এটা খুবই রাজনৈতিক মনে হয়েছে। কারণ, বাখ এই কলে অ্যাথলেট কমিশনের প্রধানকে রেখেছেন, যেটা হয়তো মানা যায়, কিন্তু চীনের আইওসি সদস্যকে রাখা আমার কাছে কোনো দিক থেকেই যৌক্তিক মনে হয়নি। এসব লোকদেখানো কিছু না করে ডব্লিউটিএর এই কল করতে পারার ক্ষমতা থাকা উচিত ছিল। একজন ব্যক্তি যিনি সুরক্ষার নিশ্চয়তা দিতে পারেন, এমন কারও (চীনের কোনো কর্মকর্তা নন) থাকা উচিত ছিল।’

টেনিস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন