বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জোকোভিচ এবার দশম শিরোপা জয়কে পাখির চোখ করেছেন। সেই সঙ্গে লক্ষ্য সব মিলিয়ে ২১তম গ্র্যান্ড স্লাম জিতে রেকর্ড গড়া। কিন্তু অস্ট্রেলীয় সরকারের সঙ্গে কোভিড স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানের কারণে এই টুর্নামেন্টে তাঁর খেলা এখনো অনিশ্চিত।

অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ড্রয়ে জোকোভিচকে অন্তর্ভুক্ত করা হলেও অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেছেন, জোকোভিচের ভিসা নিয়ে কী করা হবে, সেটি নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত আসতে পারেনি সরকার। তিনি অবশ্য জোকোভিচের ভিসাসংক্রান্ত সিদ্ধান্তের ভার অভিবাসনমন্ত্রী অ্যালেক্স হকের ওপর ছেড়ে দিয়েছেন। জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার পুরোপুরি অভিবাসনমন্ত্রীর।

অভিবাসন আদালত যদিও জোকোভিচের ভিসা বাতিলের ব্যাপারটিকে ‘অযৌক্তিক’ বলেছেন, তারপরও অভিবাসনমন্ত্রী নিজের ক্ষমতাবলে সেটি বাতিল করতে পারেন। অস্ট্রেলিয়ার অভিবাসন আইনেই আছে, করোনাকালে যদি কোনো বিদেশি নাগরিক অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করতে চান, তাহলে তাঁকে অবশ্য দুই ডোজ টিকা নিয়ে আসতে হবে। টেনিসের এক নম্বর তারকা সব সময়ই করোনা টিকা নেওয়ার বিরোধী। গত ১৬ ডিসেম্বর তিনি করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় টিকা না নেওয়ার ব্যাপারে চিকিৎসক প্যানেলের ছাড়পত্রও নিয়েছেন। যদিও সার্বিয়ান টেনিস তারকা স্বীকার করেছেন, অস্ট্রেলিয়ায় আসার আগে তিনি ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনকালে ভুলবশত কয়েকটি জায়গায় গেছেন। সে হিসেবে চিকিৎসক প্যানেলের সেই ছাড়পত্র কতটা আইনসিদ্ধ, তা নিয়ে চলছে বিস্তর চিন্তাভাবনা।

default-image

সমস্যাটা আসলে বাধিয়েছে টেনিস অস্ট্রেলিয়া ও ভিক্টোরিয়া রাজ্য সরকার। অস্ট্রেলিয়ান ওপেন টেনিসের আয়োজক টেনিস অস্ট্রেলিয়া সেই চিকিৎসক প্যানেলের ছাড়পত্র হাতে নিয়েই জোকোভিচকে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলার অনুমতি দিয়েছে। নিজেদের রাজ্যে প্রবেশের অনুমতি ভিক্টোরিয়া সরকার জোকোভিচকে দিয়েছে সেই ছাড়পত্রের ওপর ভিত্তি করেই।

টিকাহীন জোকোভিচকে ছাড়পত্র বিচার করে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলা ও ভিক্টোরিয়া রাজ্যে প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার পর থেকেই খেপেছেন অস্ট্রেলিয়ানদের অনেকেই। তাঁদের অভিযোগ, যেখানে টিকা নিয়েই বিদেশি নাগরিকদের অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের বিষয়টি বাধ্যতামূলক, সেখানে জোকোভিচ কিসের ভিত্তিতে অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করবেন। এ নিয়ে সমালোচনার মধ্যেই গত বৃহস্পতিবার মেলবোর্ন বিমানবন্দরে নামার সঙ্গে সঙ্গে জোকোভিচকে আটক করা হয়। তাঁর ভিসা বাতিল করে একটি কোয়ারেন্টিন কেন্দ্রে পাঠানো হয়। সোমবার আদালতের রায়ে মুক্তি মেলে জোকোভিচের।

টেনিস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন