জোকোভিচ এবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে ২১তম গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপার সন্ধান করবেন। সফল হতে পারলে পুরুষ এককে একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে সর্বোচ্চসংখ্যক গ্র্যান্ড স্লাম জয়ের রেকর্ড গড়বেন তিনি।

তবে জোকোভিচ করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছেন কি না, তা পরিষ্কার করে জানাননি। র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষস্থানীয় এ তারকার বাবা স্রদিয়ান সার্বিয়ার স্বনামধন্য ব্যবসায়ী।

দেশটির টিভি চ্যানেলকে গত রোববার তিনি বলেছেন, ‘টিকা নেওয়ার নিয়মটি বাধ্যতামূলক হওয়ায় জোকোভিচ “সম্ভবত” অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলবে না। তবে সে অবশ্যই সেখানে খেলতে চায়। কিন্তু সেটা ঘটবে কি না, আমি জানি না। এমন ব্ল্যাকমেল করার মতো পরিস্থিতিতে তা হয়তো হবে না।’

এদিকে অস্ট্রেলিয়ান ওপেন যেখানে অনুষ্ঠিত হয়, সেই ভিক্টোরিয়া রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী মার্টিন পাকুলা জানিয়েছেন, জোকোভিচকে তিনি অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে দেখার অপেক্ষায়।

সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক টেনিস খেলোয়াড় কিংবা যেকোনো ক্রীড়াবিদ হিসেবে এখানে এলে, তাঁকে বরণ করে নেওয়ার দায়িত্ব আমাদের। এ কারণে আমরা আন্তর্জাতিক টেনিস খেলোয়াড়দের বলছি, ভিক্টোরিয়া রাজ্যের বাসিন্দারা যে নিয়ম মেনেছে, আপনারাও তা মেনে নিন। এটা ব্ল্যাকমেল নয়, ভিক্টোরিয়ানসরা (ভিক্টোরিয়া রাজ্যের নাগরিক) যেন নিরাপদ থাকে, সেটা নিশ্চিত করা।’

অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের প্রধান ক্রেগ টিলে গত মাসে জানান, বছরের এই প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়া সব খেলোয়াড়কে টিকা নিতে হবে। এ বিষয়ে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। এ বছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলোয়াড়দের বাধ্যতামূলক দুই সপ্তাহের জন্য হোটেল কোয়ারেন্টিন করতে হয়। আগামী বছরের ১৭ জানুয়ারি শুরু হওয়ার কথা অস্ট্রেলিয়ান ওপেন।

টেনিস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন