বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তৃতীয় সেটটা ৫–২ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়েছিলেন অস্ট্রেলীয় তারকা। ভাবা হচ্ছিল হয়তো শুরুর ধাক্কাটা সামলে চতুর্থ রাউন্ডটা জিতবেন তিনি। কিন্তু এ সময় শেলবির মধ্যে যেন অন্য কিছু ভর করেছিল। আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়ামে স্থানীয় দর্শকদের সমর্থন বড় অনুপ্রেরণা হয়ে আসে যুক্তরাষ্ট্রের খেলোয়াড়ের জন্য। টানা চার পয়েন্ট জিতে ম্যাচে ফেরেন তিনি। ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত তিনি জিতেছেন টাইব্রেকেই।

উইম্বলডনের শিরোপাধারীকে হারিয়ে ম্যাচ শেষে স্বাভাবিকভাবেই বেশ আপ্লুতই ছিলেন শেলবি, ‘আমি নিজেই অবাক, নিজেই এখনো বিশ্বাস করতে পারছি না ব্যাপারটা। আমার বুক এখনো ধড়ফড় করছে। আমি সত্যিই খুব রোমাঞ্চিত জয়টি পেয়ে।’ বার্টির সঙ্গে সবশেষ ছয় লড়াইয়ে এটি শেলবির প্রথম জয়।

default-image

ম্যাচ শুরুর আগেই ‘হার না মানা’র মন্ত্রে নিজেকে উদ্দীপ্ত করেছিলেন শেলবি, ‘ম্যাচের আগে আমি যখন কোর্টে ঢুকছিলাম, তখনই নিজেকে বলেছি, গত পাঁচটি ম্যাচে আমি বার্টির কাছে হেরেছি। এবার গল্পটা বদলাতেই হবে। গত পাঁচ ম্যাচে আমি যেভাবে খেলেছি, আজ সেভাবে খেলা যাবে না মোটেও। আমি সবকিছু আজকে একটু ভিন্নভাবে করার চেষ্টা করে গেছি।’

বার্টি অকপটেই নিজের ব্যর্থতা স্বীকার করে নিয়েছেন, ‘আমি প্রথম সেটটা খুব বাজে খেলেছি। তবে আমি ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েছিলাম। সুযোগ পেয়েছিলাম, ম্যাচটা নিজের দিকে ঘোরাতে। দুটি বড় সুযোগ এসেছিল। কিন্তু কাজে লাগাতে পারিনি কিছুই।’

default-image

এদিকে নিজের ২১তম গ্র্যান্ডস্লাম জয়ের পথে আরও এগিয়ে গেছেন সার্বিয়ান তারকা নোভাক জোকোভিচ। কেই নিশিকোরিকে ৬–৩, ৬–৩ ও ৬–২ ব্যবধানে হারিয়ে চতুর্থ রাউন্ডে উঠেছেন ‘জোকার’। চতুর্থ রাউন্ডে জোকোভিচের প্রতিপক্ষ যুক্তরাষ্ট্রের জেনসন ব্রুক্সবি।

টেনিস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন