বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেন খেলতে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে পৌঁছান জোকোভিচ। কিন্তু তাঁকে অস্ট্রেলীয় ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ বিমানবন্দরেই আটকে দেয়। তাদের অভিযোগ, জোকোভিচ পূর্ণ দুই ডোজ টিকা নেননি।

অথচ সার্বিয়ান তারকা একটি চিকিৎসক দলের ছাড়পত্র সঙ্গে নিয়েই অস্ট্রেলিয়াতে পা রেখেছিলেন। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের আয়োজকেরাও জোকোভিচের পাওয়া সেই ছাড়পত্র আমলে নিয়েছিল। সে কারণেই তাঁকে ভিসা দেওয়া হয়। অস্ট্রেলিয়ার ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ সেই ভিসা বাতিল করে তাঁকে আটক করে বিশেষ হেফাজতে পাঠায়। ব্যাপারটি নিয়ে বিশ্বব্যাপী তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়েই আদালতে চ্যালেঞ্জ করেছেন জোকোভিচ। তাঁর আইনজীবী বলেছেন, গত ১৬ ডিসেম্বর করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন জোকোভিচ। তিনি আরও জানিয়েছেন, সার্বিয়ান তারকাকে টিকার ব্যাপারে ছাড়পত্র দিয়ে কাগজপত্র পাঠিয়েছে টেনিস অস্ট্রেলিয়া ও ভিক্টোরিয়ার রাজ্য সরকার। সেটি নিয়েই তিনি অস্ট্রেলিয়াতে পা রাখেন।

সেই ছাড়পত্রে বলা হয়েছে, জোকোভিচ করোনা পজিটিভ হন ডিসেম্বরের ১৬ তারিখ। এরপর ১৪ দিন অতিক্রান্ত হয়েছে। তাঁর শরীরে কোনো উপসর্গ নেই।

তিনি অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের শর্তও পূরণ করেছেন। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের আয়োজকেরা দুটি স্বাধীন মেডিকেল প্যানেলের মাধ্যমে জোকোভিচকে ছাড়পত্র দিয়েছে। একই সঙ্গে ভিক্টোরিয়া রাজ্য সরকারও জোকোভিচকে ছাড় দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার থেকেই জোকোভিচ একটি বিশেষায়িত হোটেলে অবস্থান করছেন। এই হোটেল নিয়েও অনেক অভিযোগ আছে। সাধারণত শরণার্থীদের সেখানে রাখা হয়। তাঁরা প্রায়ই সেই হোটেলের পরিবেশ নিয়ে অভিযোগ তোলেন। জোকোভিচকে এখন সেই হোটেল থেকে সরিয়ে অন্য কোনো ভালো জায়গায় রাখার দাবিও উঠেছে।

টেনিস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন