বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উদাহরণ হিসেবে ইউনিসেফ প্রতিবেদনে মিয়ানমারের ঘটনা উল্লেখ করেছে। দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় কায়াহ রাজ্যে গত বছরের শেষ দিকে সেনা অভিযানের পর ৩৫ জনের বেশি মরদেহ উদ্ধারের ঘটনা ঘটেছে। এতে চার শিশুসহ সেভ দ্য চিলড্রেনের দুজন কর্মীও ছিলেন। গত ৩১ ডিসেম্বর ইউনিসেফের ওয়েবসাইটে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক হেনরিয়েটা ফোর বলেন, বছরের পর বছর ধরে সংঘাতে লিপ্ত পক্ষগুলো শিশুদের সুরক্ষা ও অধিকারের বিষয় উপেক্ষা করে যাচ্ছে। এতে শিশুদের ভুগতে হচ্ছে। তাদের প্রাণ যাচ্ছে। তাই শিশুদের সুরক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত করতে উদ্যোগ নেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে।

২০২১ সালের পূর্ণাঙ্গ তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি। তবে ২০২০ সালে বিশ্বজুড়ে শিশু অধিকার চরমভাবে লঙ্ঘনের ২৬ হাজার ৪২৫টি ঘটনা নিশ্চিত করেছে জাতিসংঘ। ইউনিসেফ জানিয়েছে, গত বছরের প্রথম তিন মাসে শিশু অধিকার চরমভাবে লঙ্ঘনের ঘটনা কিছুটা কমেছে। তবে এ সময় শিশুদের অপহরণের ঘটনা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫০ শতাংশ বেড়েছে। যৌন সহিংসতা বেড়েছে ১০ শতাংশ।

এর মধ্যে সোমালিয়া, গণপ্রজাতান্ত্রিক কঙ্গো এবং লেক চাদ উপত্যকায় (চাদ, নাইজেরিয়া, ক্যামেরুন ও নাইজার) শিশু অপহরণ সবচেয়ে বেশি হয়েছে। আর শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতনের ঘটনা গণপ্রজাতান্ত্রিক কঙ্গো, সোমালিয়া ও মধ্য আফ্রিকা প্রজাতন্ত্রে বেশি ঘটেছে।

সশস্ত্র সংঘাতের সময় শিশুদের সুরক্ষা নিশ্চিতে ১৯৯৬ সালে প্রথমবারের মতো বৈশ্বিক উদ্যোগ নেয় জাতিসংঘ। এর ২৫ বছর পেরিয়ে গেছে। এখনো সুরক্ষা নিশ্চিত হয়নি। প্রতিবেদনে ইউনিসেফ জানিয়েছে, গত ১৬ বছরে আফ্রিকা, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য ও দক্ষিণ আমেরিকার সংঘাতকবলিত ৩০টির বেশি এলাকায় শিশুদের বিরুদ্ধে চরম ভয়াবহতার অন্তত ২ লাখ ৬৬ হাজার ঘটনার কথা নিশ্চিত করেছে জাতিসংঘ।

যুদ্ধকবলিত আফগানিস্তানে ২০০৫ সালের পর থেকে ২৮ হাজার ৫০০-এর বেশি শিশু হতাহত হয়েছে বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে ইউনিসেফ। একক দেশ হিসেবে আফগানিস্তানে শিশু হতাহতের ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটেছে। এ সময় স্কুল ও হাসপাতালে শিশুদের ওপর হামলার ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটেছে মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকায়। ২০২১ সালের প্রথম ছয় মাসে এমন হামলা হয়েছে ২২টি।

গত অক্টোবরে এক প্রতিবেদনে ইউনিসেফ জানায়, ২০১৫ সালের মার্চের পর থেকে ইয়েমেনের সংঘাতে ১০ হাজার শিশু হতাহত হয়েছে। এ ছাড়া বুরকিনা ফাসো, ক্যামেরুন, কলম্বিয়া, লিবিয়া, মোজাম্বিক, ফিলিপাইনে সশস্ত্র সংঘাতে শিশুরা হতাহতের শিকার হয়েছে।

হেনরিয়েটা ফোর বলেন, ‘সংঘাতে লিপ্ত পক্ষগুলো যখন শিশুদের সুরক্ষার বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হবে এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে, তখনই শিশুদের প্রতি ভয়াবহতা দূর হবে। তাই ২০২১ সালের শেষে এসব পক্ষের প্রতি আমার আহ্বান, শিশুদের ওপর হামলা বন্ধ করুন। সংঘাতের শান্তিপূর্ণ সমাধান নিশ্চিত করুন।’

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন