বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত বৃহস্পতিবার অ্যাসাঞ্জের আইনজীবীরা ওই প্রতিশ্রুতি প্রত্যাখ্যান করেন। তাঁর আইনজীবী যুক্তি দেন, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণ করা হলে তাঁর আত্মহত্যার ঝুঁকি থেকে যাবে। আশ্বাস সত্ত্বেও তাঁকে সুপারম্যাক্স কারাগারে বিচ্ছিন্ন রাখা হতে পারে।

গত জানুয়ারিতে যুক্তরাজ্যের একটি নিম্ন আদালত এক দশক আগে গোপন মার্কিন সামরিক নথি প্রকাশের জন্য অ্যাসাঞ্জকে প্রত্যর্পণের মার্কিন অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন। আদালত বলেন, উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো যাবে না। অ্যাসাঞ্জের বর্তমান মানসিক স্বাস্থ্য পরিস্থিতি তাঁকে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করতে পারে, এ কারণ দেখিয়ে তাঁকে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেওয়ার আবেদন নাকচ করে দেন লন্ডনের একটি আদালত।

অ্যাসাঞ্জের আইনজীবী মার্ক সামারস বলেন, মার্কিন প্রতিশ্রুতির বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। অ্যাসাঞ্জের প্রতি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর আগ্রহ রয়েছে। সাম্প্রতিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সিআইএ লন্ডনে ইকুয়েডর দূতাবাস থেকে অ্যাসাঞ্জকে অপহরণ করার এবং তাঁকে বিষ দেওয়ার পূর্বপরিকল্পনা করেছিল বলে জানা যায়।

যুক্তরাজ্যের উচ্চ আদালত বলেছেন, এ নিয়ে পরবর্তী তারিখে একটি রুল জারি করা হবে।

মার্কিন আপিল সফল হলে মামলাটি নতুন সিদ্ধান্তের জন্য নিম্ন আদালতে ফেরত পাঠানো হবে। মামলায় যে পক্ষ হারবে তারা যুক্তরাজ্যের সুপ্রিম কোর্টে আরও চূড়ান্ত আপিলের জন্য অনুমতি চাইতে পারে।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন