সময় গড়িয়েছে, কাজের অভিজ্ঞতা বেড়েছে ওয়াল্টারের। তবে কর্মক্ষেত্র বদলাননি তিনি। একই প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে করতে তিনি ফ্লোরম্যান থেকে প্রশাসনিক দায়িত্ব নেন। শুধু তা–ই নয়, বিপণন বিভাগের কাজ করতে হয়েছে ওয়াল্টারকে। ৮৪ বছরের বর্ণিল কর্মজীবনের শেষ দিকে তিনি বিক্রয় ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব সামলেছেন।

টানা ৮৪ বছর কর্মক্ষম থাকা ও একই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করার কারণে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম উঠেছে ওয়াল্টারের। সম্প্রতি গিনেস কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে বিশ্ব রেকর্ডের আনুষ্ঠানিক সনদ হাতে পেয়েছেন তিনি। এত বছর বেঁচে থাকা, কর্মক্ষম থাকার রহস্য কী? সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে এমন প্রশ্ন করা হলে ওয়াল্টারের সহজ জবাব, যা করতে ভালো লাগে, সেটা করুন। আর খাদ্যাভ্যাস থেকে ফাস্টফুড পুরোপুরি বাদ দিন।

সাক্ষাৎকারে ওয়াল্টার আরও বলেন, ‘আপনি যে কাজ করেন না কেন, তাতে মজা খুঁজে নেওয়ার চেষ্টা করুন। মজা না পেলে আপনি কোনো কাজ টানা করতে পারবেন না। আমি ভীষণ কাজপাগল মানুষ। নিজের কাজের মধ্যে মজা পেয়েছি বলেই এত বছর একটানা কাজ করতে পারছি।’

দীর্ঘদিন কর্মক্ষম থাকতে খাবার ও জীবনযাপনের ধরন বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন ওয়াল্টার। তিনি বলেন, ‘আমি অতিরিক্ত লবণ আর চিনি খাওয়া অনেক আগেই বাদ দিয়েছি। এমনকি ইচ্ছা করে কোমল পানীয় পান ছেড়ে দিয়েছি। অন্ত্রের জন্য ক্ষতিকারক, এমন খাবার পাতে তুলি না। সব সময় মন ভালো রাখার চেষ্টা করি।’

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন